‘আমাদেরও রাখা হোক ইতিহাসের পাতায়’

‘দেশের স্বাধীনতার জন্য মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে জনমত গঠনের জন্য খেলেছে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল। অথচ ইতিহাসের পাতায় তেমন ঠাঁই হয়নি আমাদের। তাহলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল সম্পর্কে কি জানবে?’, প্রশ্ন রেখে কথাগুলো বলেন স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের ম্যানেজার তানভীর মাজহারুল ইসলাম তান্না।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনে (বাফুফে) দ্বিতীয়বারের মতো স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলকে সংবর্ধনা দিল দেশের ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থাটি। এ সময় যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের সংগঠক সাঈদুর রহমান প্যাটেল, সদস্য ও বাফুফের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন, সদস্য আজম, তসলিম, শেখ আশরাফ আলী, আবদুস সাত্তার, খসরু, বীরু, সুভাষ, নওশের, আবদুল হাকিম, মোজাম্মেল, আবুল কাশেম, পৃষ্ঠপোষক তমা গ্রুপের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মানিক এবং বাফুফের সদস্য শওকত আলী খান জাহাঙ্গীর ও অমিত খান শুভ্র উপস্থিত ছিলেন। সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শেষে উপস্থিত সদস্যদের একটি করে ব্লেজার ও ১০ হাজার টাকা করে দেয়া হয়।

তান্না যোগ করেন, ‘৪৭ বছর আগের কথা। তখন আমার বয়স ছিল ২০ বছর। কলকাতার বালুঘাটে পিন্টু ভাই (স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের অধিনায়ক জাকারিয়া পিন্টু) তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন সাহেবের একটি চিঠি আমার কাছে নিয়ে আসেন। এসেই বলেন, তাজউদ্দিন সাহেব বলেছেন তোমাকে ম্যানেজার করে একটি দল গঠন করতে হবে। তখন আমি পিন্টু ভাইয়ের সঙ্গে গেলাম। গিয়ে দেখি অনেকে সেখানে দাঁড়িয়ে। তারপর ধীরে ধীরে তৎকালীন তারকা ফুটবলারদের জড়ো করতে শুরু করলাম। দল গঠন করলাম। আমাদেরকে ১৪ হাজার রুপি দেয়া হল। ভারতের বিভিন্ন জায়গায় খেললাম।’

স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের ম্যানেজার আফসোস করে বলেন, ‘আমাদের দলের অনেকেই আজ নেই। অনেকেই রোগে-শোকে ভুগছেন। অথচ জীবন বাজি রেখে খেলা এই মুক্তিযোদ্ধাদের ঠাঁই ইতিহাসের পাতায় সেভাবে হয়নি। উদ্যোগ গ্রহণ করা না হলে হয়তো একদিন সবাই চলে যাব। কেউই আর আমাদের মনে রাখবে না। মাত্র তিন হাজার টাকা করে দেয়া হয়। এতে কী হয়, তা আমার জানা নেই।’

স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের সংগঠক সাঈদুর রহমান প্যাটেল বলেন, ‘ঢাকা থেকে, মুন্সীগঞ্জ। সেখান থেকে কলকাতায়। এরপর অমৃত বস্ত্রালয়ের মালিক সুবোধ সাহার বাড়িতে আÍগোপন। বালিগঞ্জের দেশপ্রিয় পার্কে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল গঠনের প্রক্রিয়া- কত কিছ–ইতো করেছি। কিন্তু কতটুকু পেয়েছেন এই দলের সদস্যরা। বিভিন্ন জেলায় খেলে আমরা ১৬ লাখ ৩০ হাজার টাকা তুলে দিয়েছিলাম আগরতলায় তৎকালীন সরকারের ফান্ডে। অথচ এখন অনেকেই বলে থাকেন আমরা নাকি মাত্র পাঁচ লাখ টাকা দিয়েছিলাম। এটা ঠিক নয়। ইতিহাস কেউ মুছতে পারবে না। আমাদেরকেও রাখা হোক ইতিহাসের পাতায়।’

যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়ের কথা, ‘আমি বেশ কয়েকবার জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের কথা বলেছিলাম। আরও কিছু সময় রয়েছি। এর মধ্যে কাজী সালাউদ্দিন ভাই ও তান্না ভাই আমার সঙ্গে গেলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বিষয়টি উত্থাপন করতে পারি। তাহলে হয়তো কাজ হবে।’

বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন বলেন, ‘এদেশের স্বাধীনতায় স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের অবদান কম নয়। তাই সবাইকে আমি শ্রদ্ধা জানাই। দেশ স্বাধীন হওয়াতেই আজ আমি বাফুফের সভাপতি হতে পেরেছি। তিনবার দক্ষিণ এশিয়ার সাত দেশের ফুটবল সংস্থার সভাপতি পদে আসীন হয়েছি।’

তিনি যোগ করেন, ‘আমার মনে পড়ে মুম্বাইয়ে আমরা খেলতে গেলে নবাব পাতৌদি পরিবার আমাদের সম্মান জানিয়েছিল। সেখানে নায়ক দিলীপ কুমার এবং নায়িকা ও পাতৌদি পরিবারের বধূ শর্মীলা ঠাকুরও আমাদের অনেক সহযোগিতা করেছেন। মাটিতে শুয়ে রাত কাটাতে হয়েছে। অনেক কষ্ট করেছি আমরা। তাই ইতিহাসের পাতায় আমাদের ঠাঁই হওয়া প্রয়োজন। আগামী প্রজন্মকে জানতে হবে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল কী ছিল। কারা করেছে। কারা খেলেছে।’

স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের ৩৬ জন সদস্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ১০ থেকে ১২ জন। তবে এই সংবর্ধনায় আসেননি দলের অধিনায়ক জাকারিয়া পিন্টু ও সহ-অধিনায়ক প্রতাপ শংকর হাজরা।

যুগান্তর

Leave a Reply