নির্বাচনকে ঘিরে মুন্সীগঞ্জে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা বলয়

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্যাপক নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে এবং অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের লক্ষ্যে মুন্সীগঞ্জের তিনটি আসনে দুই হাজারেরও বেশি নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য দায়িত্ব পালন করছে। মুন্সীগঞ্জের ৬টি উপজেলার মধ্যে যে অঞ্চলগুলো কিছুটা ঝুকিপূর্ণ সেখানে বিশেষ নজর দেয়া হয়েছে।

পুলিশ, র‌্যাব ও নিয়মিত নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে যুক্ত হয়েছে বিজিবি ও সেনাবাহিনী। মুন্সীগঞ্জে নির্বাচনি দায়িত্ব পালনে থাকবে সাড়ে ৫ হাজার আনসার ও ভিডিপি সদস্য। নির্বিঘ্নে নির্বাচন সম্পন্ন করতে সকল বাহিনীকেই তৎপর দেখা যাচ্ছে। টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী, র‌্যাব ও বিজিবি।

বিভিন্ন বাহিনীর কর্মকর্তাদের তথ্য অনুযায়ী, মুন্সীগঞ্জে পুলিশ দায়িত্ব পালন করবে ১৫ শতাধিক। র‌্যাব ১১ (সিপিসি ১) এর ১০ টি পেট্রোল ও ২ টি স্ট্রাইকিং ফোর্স কাজ করছে।

র‌্যাবের ৮টি পেট্রোল ও ২টি স্ট্রাইকিং ফোর্স থাকবে মুন্সীগঞ্জের ৫ টি উপজেলায় এবং মেঘনার ওপাড়ে গজারিয়া উপজেলায় থাকবে ২ টি পেট্রোল। শতাধিক র‌্যাব সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে।

মুন্সীগঞ্জে বিজিবি মোতায়েন আছে ১২ প্লাটুন। সিরাজদিখান অঞ্চলে ৪ প্লাটুন, গজারিয়ায় ২ প্লাটুন এবং মুন্সীগঞ্জ ও অন্যান্য উপজেলায় থাকবে ৬ প্লাটুন। জেলা রিটানিং অফিসারের পরিকল্পনা অনুযায়ী নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবে। মুন্সীগঞ্জে সেনাবাহিনীর ২টি ইউনিটের ৩ টি ক্যাম্প করা হয়েছে। প্রায় শতাধিক সেনা সদস্য নির্বাচনে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে। নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি মোতায়েন থাকবে আনসার ও ভিডিপি সদস্য। মুন্সীগঞ্জে ৫ হাজার ৫শ’ ৩২ জন আনসার ও ভিডিপি সদস্য দায়িত্ব পালন করবে। আসন্ন একাদশ নির্বাচনকে সামনে রেখে যে কোন ধরনের সহিংসতা রোধ করতে কাজ করছে বাহিনীর সদস্যরা।

র‌্যাব-১১, সিপিসি-১, মুন্সীগঞ্জ ক্যাম্পের কমান্ডার এএসপি মো. মহিতুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, তাদের ৮টি টিম প্রতিদিন মুন্সীগঞ্জের প্রতিটি উপজেলার অলি-গলিতে টহল দিচ্ছে। দেশের আইনশৃঙ্খলা ও জানমালের নিরাপত্তা রক্ষায় র‌্যাব সদা প্রস্তুত। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কেউ কোন ধরণের জানমালের ক্ষতি ও নাশকতা ঘটানোর চেষ্টা করে তাহলে তা কঠোর হস্তে দমন করা হবে। নির্বাচন যাতে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয় এবং জনগণ যেন নির্ভয়ে ভোটকেন্দ্রে এসে ভোট দিতে পারে সেদিকে সদা তৎপর থাকবে র‌্যাব সদস্যরা।

জেলা রিটানিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা জানান, নিরাপত্তা নিয়ে আমরা কোন শঙ্কা করছিনা। এখন পর্যন্ত দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া বড় ধরণের কিছু ঘটেনি। মানুষ যাতে নির্বিঘেœ ভোট দিতে পারে সেজন্য আমরা সব ব্যবস্থা করেছি। আশা করছি সবার সহযোগিতায় মুন্সীগঞ্জে একটি অবাধ, সুষ্ঠ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন
অনুষ্ঠিত হবে।

অবজারভার

Leave a Reply