মুন্সীগঞ্জে বোরোর বীজতলা তৈরির ধুম

চলতি মৌসুমে শ্রীনগর উপজেলা জুড়ে বোরো ধানের বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কৃষকরা। আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহারের পাশাপাশি অনেক কৃষক পুরনো পদ্ধতিতে গরু দ্বারা চাষ করে জমি প্রস্তুত করছেন। চলতি মৌসুমে শ্রীনগর উপজেলার গ্রামে গ্রামে এখন কৃষক জমি প্রস্তুতের পাশাপাশি বোরোর বীজতলা তৈরি করে চলেছেন। বোরো রোপণের এখন ভরা মৌসুম। আলু উত্তোলনের আগ পর্যন্ত চলবে এই বোরো বীজ রোপণ। তবে আগাম আলু উত্তোলনের পরেও বোরো রোপণ হয় এখানে।

মার্চের দিকেই বোরো উঠে যাবে। এর পরই পাট বা বোনা আমন রোপণ শুরু হবে। এদিকে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট বোরো ধানের প্রায় ২৭টি জাত উদ্ভাবন করেছে। এ সব জাতের বোরো বীজ ছাড়াও বাজারে বিভিন্ন কোম্পানির নানা হাইব্রিড জাতের বোরো বীজ পাওয়া যায়। শ্রীনগর উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে বীজ, সার ও কীটনাশক ডিলারের দোকানগুলোতে এ সব বোরো ধানের বীজ বিক্রি করা হচ্ছে। কৃষক দোকান থেকে নিজের পছন্দের বীজ সংগ্রহ করছেন। এরপর জমি প্রস্তুত করে বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ত হয়ে পড়ছেন। কৃষক এখন পুরোদমে জমিতে বীজতলা তৈরির কাজে নেমে পড়েছেন।

কৃষকরা জানিয়েছেন, বীজতলায় বোরো ধানের চারা বড় হওয়ার পর উত্তোলন করা হয়। ওই চারাগুলো পরবর্তীতে জমিতে আবাদ করা হয়ে থাকে। জেলার শ্রীনগর উপজেলার অধিকাংশ কৃষক বোরো চাষাবাদের কারণে পরিবারের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি বাজারে ধান বিক্রি করে থাকেন। এই লক্ষে শ্রীনগর উপজেলার হাজারো কৃষক আগাম বোরো ও ইরি বীজতলা তৈরিতে জমিতে কাজ করে যাচ্ছেন। আবাদ শুরুর আগে বীজতলা তৈরি করতেই এখন মনোযোগী তারা। বীজতলার চারা গজানোর পর আবাদের জন্য উত্তোলন করা হবে। বীজতলা থেকে কৃষকরা জমিতে রোপণের জন্য চারা নিয়ে যাবেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শান্তনা রানী জানান, গত মৌসুমে শ্রীনগর উপজেলার ৬ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে বোরো ও ইরি ধানের চাষাবাদ করা হয়। চলতি মৌসুমেও ৬ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। চলতি বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি চাষাবাদ ও ফলনও বেশি হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিফতর জানিয়েছে, মুন্সীগঞ্জ জেলায় প্রায় ২৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়ে থাকে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply