২০ হাজার ইয়াবাসহ টঙ্গীবাড়ীর সজিব আটক

রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানার বসিলা এলাকা থেকে ২০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ চার জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-২)।

শনিবার (৫ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ১০টার দিকে মোহাম্মদপুরের বসিলা মোড়ে র‌্যাবের চেকপোস্ট থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটক ব্যক্তিরা হলো— মো. মোজাম্মেল (৩০), মো. মঞ্জুর আলম (৪৩), মো. সজিব হাওলাদার (৩১) ও লাবনী (২৫)। তাদের দেহ তল্লাশি করে এবং সঙ্গে থাকা শপিং ব্যাগ থেকে ২০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, নগদ ৩ হাজার ৪৪২ টাকা ও সাতটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

আটক মাদক ব্যবসায়ী মো.মোজাম্মেল চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানার ভ্যানারখিল এলাকার মোশারফ হোসেনের ছেলে। আটক রুবেল একই এলাকার মো. বাচ্চু মিয়ার ছেলে। মাদক ব্যবসায়ী সজিব হাওলাদার ও লাবনী স্বামী-স্ত্রী। তাদের গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ী থানার পাচনখোলা হাসাইল বাজারে।

মাদকবিরোধী অভিযানের মধ্যেও ঢাকায় চড়া দামে ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রির জন্য কক্সবাজারের মাদক ব্যবসায়ী রহমান,নবী ও ওমর ফারুকের কাছ থেকে নিষিদ্ধ ইয়াবা ট্যাবলেট সংগ্রহ করতো আটক ব্যক্তিরা। পরে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে সেগুলো কক্সবাজার থেকে ঢাকায় এনে বিভিন্ন এলাকায় থাকা তাদের সহযোগীদের কাছে সরবরাহ করতো বলে জানিয়েছে র‌্যাব-২।

র‌্যাব-২ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি মোহাম্মদ সাইফুল মালিক রবিবার (৬ জানুয়ারি) বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি যে, রাজধানীর মোহাম্মদপুরের বসিলা এলাকায় জনতা কাঁচা বাজারে মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে ইয়াবার চালান সরবরাহ হবে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-২ বসিলা মোড়ের পাশে একটি চেকপোস্ট বসায়। রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই চেকপোস্টের একটু আগে একটি গাড়ি এসে থামে এবং সেখান থেকে নেমে মাদক ব্যবসায়ীরা পালানোর চেষ্টা করে। ওই সময় একজন নারীসহ চার জনকে আটক করা হয়। আটক ব্যক্তিরা প্রথমে ইয়াবার চালান সম্পর্কে অস্বীকার করলেও তাদের দেহ তল্লাশি করে এবং সঙ্গে থাকা শপিং ব্যাগের ভেতরে ২০ হাজার পিস ইয়াবা পাওয়া যায়।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, কক্সবাজারের ইয়াবা ব্যবসায়ী রহমান, নবী ও ওমর ফারুকের কাছ থেকে তারা প্রতিনিয়ত ইয়াবা ট্যাবলেটের চালান এনে ঢাকায় তাদের সহযোগী আরিফ, হাসান, জামাল, বিপ্লব, মোস্তাফিজ, উজ্জল ও কামালের কাছে সরবরাহ করতো। প্রতিবারের মতো এবারও তারা ইয়াবা নিয়ে মোহাম্মদপুরে বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধের কাছাকাছি পলাতক আসামি আরিফের বাসায় যাচ্ছিলো।

তিনি জানান, আটক ব্যক্তিরা আরও জানায়, মাদক ব্যবসায়ী আরিফ, হাসান ও বিপ্লবের মাধ্যমে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে খুচরা ক্রেতাদের কাছে ইয়াবা পৌঁছানোর কাজ করে থাকে। এছাড়া, জিজ্ঞাসাবাদে তারা আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে— সেগুলো যাচাই-বাছাইয়ের কাজ করা হচ্ছে।

বাংলা ট্রিবিউন

Leave a Reply