স্মৃতিকথা – দোলা ইব্রাহিম

হেঁটে হেঁটে বহুদুর যাত্রা সঙ্গী নেই কেহ,
হাঁটছি আমি নিসর্গে সঙ্গে স্মৃতিটুকু!
সুয্যি ডুবে সন্ধ্যা নামে রুপসার তীরে,
মেঘ চিরে যেন চন্দ্র টাও ফিনিক হেসে ওঠে!
তারার পরে তারার মেলা লুকোচুরি খেলে,
আকাশজুড়ে সুখেরচকিয়া আবেগ ধরায় চোখে!
হাঁটছি আমি বহুদুর সঙ্গী নেই কেহ,
শুধু তোমার স্মৃতি চিরতরুণ হাঁটছে পিছু পিছু!

চাঁদের আলো চারিপাশে,ছড়ায় করুন শোভা,
রুপসার জলে ঢেউ খেয়ে তা বাড়ায় মনোলোভা!
শিশিরকণা টপটপ পরে মেঘের ডানা হতে,
তারই ছোঁয়ায় তরুলতা শীতল হয়ে থাকে!
মৃত্তিকার কাচা সোঁদা গন্ধ শিশির জলে সিক্ত,
প্রাণে মোর জাগায় প্রেম,আমি তাঁরই ভৃত্য!
হাঁটছি আমি বহুদুর সঙ্গী নেই কেহ,
শুধু তোমার প্রণয় চিরন্তন হাঁটছে ছায়ার মত!

কাঁচা রাস্তার আইল ধরিয়া হেঁটেছিলুম কত,
কত গান গেয়েছিলুম ছোট্ট পাখির মত!
মিত্রের সনে এ ডাল,ও ডাল ঘুরেছিলেম ঘাসফড়িং
এর মত, প্রাণবন্ত হয়ে আছে স্মৃতিফলক সঙ্গে নেই কেহ!
পৃথিবী সব রং হারায়ে নিশুতিতে ডোবে,
লক্ষ জোনাক ঝলমল করে দীপ্যমান জ্বলে!
পৃথিবীর সব পাখিরা ঘরে ফিরে যায়,
শৈশবের ওই স্মৃতি যেন পিছু পিছু ধায়!
হাঁটতে হাঁটতে ক্লান্ত আমি বসি নিরালায়,
নিশির অন্ধকার সঙ্গে আমার শৈশব দোরগোড়ায়!

Leave a Reply