লৌহজংয়ে সন্ত্রাসী হামলায় স্ত্রী-সন্তানসহ আহত ৪ : ফের হামলার ভয়ে লোকজন গ্রামছাড়া

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসী হামলায় একই পরিবারের স্বামী-স্ত্রী ও মেয়েসহ ৪ জন আহত এবং বাড়িঘর ভাঙচুর ও লূটপাটের অভিযোগ উঠেছে। ফের হামলার ভয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের লোকজন বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে। আহতদের মধ্যে ৩ জনকে ঢাকার মিডফোর্ট ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে জেলার লৌহজং উপজেলার পূর্ব বুরদিয়া গ্রামের সিরাজ শেখের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে সিরাজ শেখ (৪৫) ও তার মেয়ে সাহেলা আক্তার (১২) ঢাকার মিডফোর্ট এবং আত্মীয় দিদার হোসেন (৩০)-কে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত সিরাজ শেখের স্ত্রী পারভীন বেগম জানান, গত ৪-৫ দিন আগে প্রতিবেশী শাহীন বেপারীর ছেলে নাছির বেপারী ৬শ’টাকা হারানোর দাবি তুলে তার ভাগিনা অনিকের সঙ্গে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে লাঠিসোটা দিয়ে আঘাত করে দাঁত ভেঙে ফেলে। এ ঘটনার পর সিরাজ শেখ গ্রুপও রাজ্জাক বেপারী-নাছির গ্রুপের উপর হামলা চালায়। এতে ৪-৫ আহত হয়। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এসব ঘটনা স্থানীয় মেম্বার আনোয়ার হোসেন খোকন বেপারীকে জানানো হলেও তিনি কোন সুরাহা না করে নাছির বেপারীর পক্ষ নেয়। এরপর সোমবার দুপুরে রাজ্জাক বেপারী তার চাচাতো নাতি নাছির, বাবু, সজীব, শাহীনসহ ২০-২৫ জনের একদল সন্ত্রাসী সিরাজ শেখ ও দিদার হোসেনের বাড়িতে হামলা করে বাড়িঘর ভাঙচুর করে। সিরাজ শেখের গরু বিক্রি করে স্টিলের আলমারিতে রক্ষিত রাখা ৫০ হাজার টাকা আলমারি ভেঙে নিয়ে যায়। এ সময় তাদের হামলায় সিরাজ শেখ, তার স্ত্রী, মেয়েসহ ৪ জন আহত হয়।

তিনি আরও জানান, ঘটনা ঘটানোর পর প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা দফায় দফায় তার বাড়িতে মহড়া দিচ্ছে। আবারও হামলার আশঙ্কা করছেন এবং হামলার ভয়ে বাড়ির অন্যান্য লোকজন অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে।

গাওদিয়া ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার সোবহান শেখ জানান, এই বিষয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যানের শরনাপন্ন হলেও তিনি কোন কার্যকর ব্যবস্থা নেননি।

লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনির হোসেন জানান, দুই পক্ষের মধ্যেই মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এক পক্ষ একটু বেশি আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে। এঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। আরেক
পক্ষ অভিযোগ দিলে তা নথিভুক্ত করা হবে।

অবজারভার

Leave a Reply