বিএনপি ছাড়ছেন শাহ মোয়াজ্জেম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভরাডুবির গ্লানি নিয়ে রাজনীতি থেকে স্বেচ্ছায় নির্বাসনে যেতে চান বিএনপির বর্ষীয়ান রাজনীতিবীদ দলের ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন। রাজনীতিতে বহুল আলোচিত-সমালোচিত শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ছাত্রলীগের রাজনীতির মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে একসময় বঙ্গবন্ধুর স্নেহের পাত্রে পরিণত হন। জাতীয় পার্টির শাসনামলে উপ-প্রধানমন্ত্রীর পদও অলংকিত করেন এ জননেতা।

অনেক সময় ধরে তিনি জাতীয় পার্টির মহাসচিব পদেও অধিষ্ঠিত ছিলেন। জাতীয় পার্টি ছেড়ে বিএনপিতে যোগদান করলে তাকে ভাইস চেয়ারম্যান পদ দেওয়া হয়। তবে একটি বিশেষ সূত্র জানিয়েছে, শাহ মোয়াজ্জেমকে স্থায়ী কমিটির সদস্য করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিএনপিতে যোগদান করানো হয়েছিলো। যদিও বেশ কিছুদিন তিনি এ বিষয়টি নিয়ে নিশ্চুপ ছিলেন।

জানা গেছে, স্থায়ী কমিটির সদস্য করার ব্যাপারে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সম্মতি থাকলেও প্রবল বিরোধিতা ছিল তারেক রহমানের। স্ত্রী মারা যাবার পর অনেকদিন রাজনীতি থেকে বেশ দুরে ছিলেন এই নেতা। পরে খালেদা জিয়ার অনুরোধে আবারো সক্রিয় হোন। যোগ দেন বিএনপির বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিজ নির্বাচনী এলাকা মুন্সীগঞ্জ থেকে বিকল্পধারার মুখপাত্র মাহি বি চৌধুরীর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। নির্বাচনের পর আর তাকে বিএনপির কোনো কর্মসূচিতে দেখা যায়নি।

শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘বয়স তো অনেক হলো এখন রাজনীতির মাঠ থেকে বিদায় নিতে চাই। তাছাড়া যে দলের রাজনীতি করি সে দলেরও কোনো সঠিক কর্মপন্থা নেই। বর্তমানে নেতার হাতে রাজনীতি নেই, গোটা রাজনীতিতে চলছে দস্যিপনা।’

বর্ষীয়ান এ রাজনীতিবীদ বলেন, ‘জীবদ্দশায় ইজ্জত-মান-সম্মান নিয়ে বিদায় নিতে চাই। বর্তমানে শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন আত্নজীবনী লেখা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন।’

বাংলাদেশ জার্নাল/ওয়াইএ

Leave a Reply