শ্রীনগরে একাধিক ধারায় বিভক্ত আওয়ামী লীগে প্রার্থী জটঃ কেন্দ্রের নির্দেশ পুরণে তৃণমূলের ভোট

আরিফ হোসেনঃ শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একাধিক ধারায় বিভক্ত উপজেলা আওয়ামী লীগে দেখা দিয়েছে প্রার্থী জট। ইতিমধ্যে চেয়ারম্যান পদের বিপরীতে অর্ধডজনের বেশী, ভাইস চেয়ারম্যান পদের বিপরীতে ৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের বিপরীতে ৩ জনের নাম শোনা যাচ্ছে। এদের মধ্যে কেউ দলের ত্যাগী নেতা হিসাবে পরিচিত, কেউ দলের সিদ্ধান্তের বাইরে থেকে একাধিকবার নির্বাচন করেছেন, আবার কেউ ক্ষমতার লোভে দল পরিবর্তন করে পুনরায় সুবিধা নিতে দলে ফিরে এসেছেন। তৃণমূল আওয়ামী লীগ থেকে বহুদিন বিচ্ছিন্ন ছিলেন এমন কেউও প্রার্থী হতে চাচ্ছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের একটি সূত্র জনায়, প্রার্থীদের এই সংকট সমাধানে কেন্দ্রের নির্দেশ অনুসারে ৩ জনের নাম পাঠানোর জন্য উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়নের প্রত্যেকটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের ভোটে নির্বাচন করা হবে। আগামী মঙ্গলবার এই ভোট গ্রহনের কথা রয়েছে। তৃণমূল আওয়ামী লীগের অনেকে এই ভোট গ্রহনকে গনতান্ত্রিক প্রক্রিয়া হিসাবে আখ্যা দিলেও কেউ কেউ এর সমালোচনা করছেন। কেউ বলছেন এটা উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব সংকট। তাছাড়া যারা ভোট দিবেন তারা সাবেক এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ প্রভাবে কমিটিতে স্থান পেয়েছেন। সুতরাং এই ভোট দানেও তারা জনপ্রিয় প্রার্থীকে বাদ রেখে সুকুমার রঞ্জন ঘোষের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারেন। এনিয়েও চলছে নানা রকম গুঞ্জন।

শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও দীর্ঘদিন মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের এমপি হিসাবে দায়িত্ব পালন করায় সুকুমার রঞ্জন ঘোষের নেতৃত্বে উপজেলা ও ইউনিয়ন কমিটির বিভেদ পরিলক্ষিত হয়নি। প্রায় ২ বছর ধরে তার অসুস্থ্যতার কারনে উপজেলা আওয়ামী লীগে তৈরি হয় নেতৃত্ব সংকট। নেতৃত্ব সংকটের কারনে গত সংসদ নির্বাচনের অনেক আগে থেকেই উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটির বিভিন্ন পদে থাকা নেতারা এমপি হিসাবে মনোনয়ন প্রত্যাশী আওয়ামী লীগের সাবেক স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ বদিউজ্জামান ডাবলু, কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক গোলাম সারোয়ার কবির, শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরী ও তৎকালীন এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ সহ বিভিন্ন ধারায় বিভক্ত হয়ে পরে। শেষ মূহুর্তে শরিক দল থেকে এমপি প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করেন বিকল্পধারার মাহী বি,চৌধুরী। দলের বাইরে থেকে এমপি নির্বাচিত হওয়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব সংকট আরো প্রকট হয়ে উঠে। তৃণমূল আওয়ামী লীগের একাধিক নেতার মতে, বিএনপি নির্বাচনে না আসায় অনেকেই মনে করছেন দলের টিকিট পেলেই জয় নিশ্চিত।

শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে যাদের নাম শুনা যাচ্ছে তারা হলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ সেলিম আহমেদ ভূইয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ তোফাজ্জল হোসেন, জেলা যুবলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মশিউর রহমান মামুন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের কার্যকরী কমিটির সহ সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন, মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও ইসলামপুর বস্ত্র ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি শামসুল আলম সবজল, ষোলঘর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আজিজুল ইসলাম ও ভাগ্যকূল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি শহিদুল ইসলাম একুল খান।

ভাইস চেয়ারম্যান পদের বিপরীতে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক শেখ মোঃ আলমগীর, সাংগঠনিক সম্পাদক আলী আক্কাস মৃধা জীবন, উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জহিরুল হক নিশাত শিকদার ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এবং সেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ওয়াহিদুর রহমান জিঠুর নাম শুনা যাচ্ছে।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের বিপরীতে রয়েছেন উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আছিয়া আক্তার রুমু, সহ সভাপতি রেহেনা বেগম, উপজেলা যুব মহিলা লীগের যুগ্ন আহবায়ক মর্জিনা বেগম মুন্নী।

এদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে আলহাজ¦ সেলিম আহমেদ ভূইয়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে ওয়াহিদুর রহমান জিঠু সম্পৃক্ত রয়েছেন গোলাম সারোয়ার কবিরের ধারায় । উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের সাথে রয়েছেন চেয়ারম্যান পদে আলহাজ¦ তোফাজ্জল হোসেন, মশিউর রহমান মামুন, মোঃ আজিজুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান পদে জহিরুল হক নিশাত শিকদার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে রেহেনা বেগম। ডাঃ বদিউজ্জামান ভূইয়া ডাবলুর অনুসারী রয়েছেন চেয়ারম্যান পদে শামসুল আলম সবজল, জাকির হোসেন ও একুল খান, ভাইস চেয়ারম্যান পদে শেখ মোঃ আলমগীর ও আলী আক্কাস মৃধা জীবন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আছিয়া আক্তার রুমু ও মর্জিনা বেগম মুন্নি।

শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীদের মধ্যে মোঃ জাকির হোসের পূর্বে দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে ২ বার নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছেন, আলহাজ¦ সেলিম আহমেদ ভূইয়া দলীয় টিকেটে ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়ী হলেও পরের বার চেয়ারম্যান পদে পরাজিত হন। শামসুল আলম সবজল এক সময়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের অপরিহার্য নাম হলেও প্রায় এক যুগ ধরে তৃণমূল আওয়ামী লীগের সাথে তার যোগাযোগ নেই। শহিদুল ইসলাম একুল খান ভাগ্যকূল আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন, তিনি দল ত্যাগ করে বিএনপিতে যোগ দিয়ে উপজেলা বিএনপির কমিটিতে পদ নেন। দীর্ঘদিন পর পুনরায় আওয়ামী লীগে ফিরে এসেছেন। বিএনপি শাষনামলে হামলা-মামলার স্বীকার আলহাজ¦ তোফাজ্জল হোসেন আওয়ামী লীগের দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত নেতা। বর্তমান সময়ে শ্রীনগর আওয়ামী লীগের যুব সমাজে মশিউর রহমান মামুনের গ্রহন যোগ্যতা রয়েছে। সাবেক এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের সাথে দুরত্ব ঘুচিয়ে নেওয়ায় আওয়ামী লীগের অনেকেই তার হয়ে কথা বলছেন। ষোলঘর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইসলামের প্রার্থীতার গুঞ্জন রয়েছে। তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয় লাভ করেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে শেখ মোঃ আলমগীর গত নির্বাচনে পরাজিত হন। বিএনপি ২ জন প্রার্থীর বিপরীতে তিনি একাই আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন। তার দাবী পরাজয়ের বিপরীতে দলীয় হাই কমান্ডের নির্লিপ্ততা কাজ করেছে। এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের শেষ সময়ে দলীয় সুবিধা ভোগী নেতারা তাকে ছেড়ে গেলে তার হয়ে শক্ত হাতে হাল ধরে আলোচনায় এসেছেন জহিরুল হক নিশাত শিকদার। পরে তিনি সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। আলী আক্কাস মৃধা জীবন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে দীর্ঘদিন ধরে জড়িত। তিনিও প্রার্থী হয়েছেন। এই পদে কনিষ্ঠ প্রার্থী ওয়াহিদুর রহমান জিঠু। তিনি ছাত্র লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন অনেক দিন। পরে সেচ্ছাসেবক লীগের হয়ে মাঠে ছিলেন। ওয়াহিদুর রহমান জিঠু শ্রীনগরের আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে পরিচিত মুখ।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করে আছিয়া আক্তার রুমু পরাজিত হয়েছিলেন। রেহেনা বেগম ও মর্জিনা বেগম মুন্নী নবীন প্রার্থী হলেও তারা আনেকদিন ধরে শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতির মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন।

Leave a Reply