কাজ করি দায়িত্ব থেকে, মানুষকে ভালোবেসে, পদক পাওয়ার জন্য নয়

জায়েদুল আলম পিপিএম
জসীম উদ্দীন দেওয়ান : একজন সফল পুলিশ সুপার মো: জায়েদুল আলম পিপিএম। আরো একবারের মতো এবারও রাষ্ট্রপতি পদকে ভূষিত হন তিনি। দিন রাত কাজের ব্যাস্ততার ফাঁকে সময় পেলে চোখ ভুলান বইয়ের পাতায়। তেমন একটি সময়ে তাঁর কাছে জানতে চাওয়া । কাজের স্বীকৃতিতে নিজের অনুভূতির কথা, একের পর এক সফলতা লাভের গল্প।। প্রতি উত্তরে নিজের পাশের মানুষদের সহযোগিতার কথা বললেন অবলীলায়, বললেন মুন্সীগঞ্জ জেলার মানুষদের ভালোবাসা পাবার কথা। কাজের স্বীকৃতি পেয়ে ধন্যবাদ দেন প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্টমন্ত্রী, আই জিপি থেকে শুরু করে এই জেলাবাসীদের।

সুন্দর মনের মানুষ,তাই ভাবে সুন্দরের কথা। শুধু নিজের কার্যালয় সুন্দর হবে এমনটা নয়। দৃষ্টি তাঁর সকল কর্মকর্তাদের দিকে। ফলে অবকাঠামোগত উন্নত করেন জেলার ছয়টি থানা ও পুলিশ লাইন্সেররও। সব কিছু সাজানো গোছানো দেখতে পছন্দ করেন জায়েদুল আলম পিপিএম।

জনগনের সাথে দুরুত্ব কমিয়ে, মানুষের কাছে যেয়ে জটিল কাজগুলো অতি সহজে করা যায় বলে বিশ্বাস করেন এই পুলিশ সুপার। আর তাঁর এমন বিশ্বাস, সিরাজদিখানের বালুর চরের দীর্ঘ দিনের টেঁটা যুদ্ধ থামাতে পেরেছে। দিন রাত অবিরাম চলা এই যুদ্ধ থেমে বালুরচর এখন শান্ত। কৌশলী পদক্ষেপে দ্রুত গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় গজারিয়ায় সেতু থেকে ফুলদী নদীতে ফেলে দিয়ে কলেজ ছাত্র পায়েল হত্যার আসামী তিন বাস শ্রমিকদের।। তাঁর সাহসীকতা ও বীরত্বের ফলে পার পায়নি, লেখক,প্রকাশক ও ব্লগার শারজাহান বাচ্চু হত্যার আসামী জেএমবি নেতারাও।

সব কাজ মানুষকে ভালোবেসে, কোন পদক পাবার উদ্দেশ্যে নয়। সিনিয়র বস ডিআইজি হাবিবুর রহমানের কাছ থেকে ভালো কাজ করার প্রেরণা পেয়েছে বলে জানান জায়েদুল আলম।

নিজের কৃতকর্মের ফলে,২০১৫ সালে প্রথম রাষ্ট্রপতি পদক, ১৬ এবং ১৭তে আইজি ব্যাচ,১৭ সালে শেরে বাংলা পদক এবং ২০১৮ সালে পুনরায় রাষ্টপতি পদক পাওয়ায় ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হন তিনি। মাদারীপুর জেলার, মরহুম লালমিয়া শিকদার ও রোকেয়া বেগমের সর্ব কনিষ্ঠ সন্তান জায়েদুল আলম পিপিএম। ব্যাক্তি জীবনে দুই সন্তানের জনক তিনি। তাঁর সহধর্মিনী জেসমিন কেকা পুলিশ সুপার হিসেবে ঢাকা হেড কোয়ার্টারে কর্মরত আছেন।

Leave a Reply