সিরাজদিখানে আলুর ভালো ফলনের আশা, দাম নিয়ে দুশ্চিন্তা কৃষকের

গোল আলু ক্ষেতের পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন সিরাজদিখানের ১৫ হাজার আলু চাষি। এ বছর আলুর বাম্পার ফলনের ব্যাপারে আশাবাদী চাষিরা, কিন্তু ভালো দাম পাবেন কিনা এ নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা। কারণ বিগত তিন বছরে আলুতে বিশাল লোকসান গুনতে হয়েছে তাদের। সিরাজদিখান উপজেলার তিনটি কোল্ড ষ্টোরেজে এখনও ৪ শত টন আলু মজুদ রয়েছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র বলছে, চাহিদার তুলনায় আলুর উত্পাদন বেশি হওয়ায় চাষিরা আলুর দাম পাচ্ছেন না।

এ বছর আবার নতুন এক চিন্তায় পড়েছেন আলু চাষিরা। কারণ সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ বছর থেকে গোল আলু কোল্ড-ষ্টোরেজে রাখতে হবে আগের চেয়ে ছোট বস্তায়। আগে রাখা হতো প্রতি বস্তায় আশি কেজি। এখন থেকে রাখতে হবে ৫০ কেজি বস্তায়। এতে চাষিদের শ্রমিকের মজুরি, পরিবহন ব্যয়, কোল্ড-ষ্টোরেজ ভাড়াসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক ব্যয় বেড়ে যাবে। গত কয়েক বছর আলুতে লোকসান হওয়ায় এ বছর সিরাজদিখানে আলু চাষের পরিমাণ কিছুটা কমে গেছে। গত বছর সিরাজদিখান উপজেলার গোল আলুর চাষ হয়েছিল ৯ হাজার ৪শত ৫০ হেক্টর জমিতে। আর এ বছর চাষ হয়েছে ৯ হাজার ২ শত হেক্টর জমিতে।

উপজেলার উত্তর রাঙ্গামালিয়া গ্রামের মোঃ আমানুল্লাহ বলেন, এ বছর ২৫ বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছি। গত বছর করেছিলাম ৩০ বিঘা জমিতে। গত তিন বছর অনেক লোকসান হওয়ায় এখন চিন্তায় আছি । প্রায় একমাস পর অর্থাত্ ফাল্গুন মাসের শেষের দিকে আলু উঠবে। তিনি আরো বলেন, সরকার ন্যায্যমূল্যে কৃষকের কাছ থেকে আলু ক্রয় করলে এবং সেই সঙ্গে আলুর ব্যবহার বৃদ্ধি ও বিভিন্ন দেশে তা রপ্তানির ব্যবস্থা করলে কৃষক আলুর ন্যায্য মূল্য পেত।

সিরাজদিখান উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ চন্দ্র রায় জানান, জলবায়ু অনুকূলে থাকায় এ বছর গোল আলুর ফলন লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কৃষকের ভালো দাম পাবার ব্যাপারেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ইত্তেফাক

Leave a Reply