প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের অভিযোগে গ্রেফতার ৩

মুন্সীগঞ্জ টংঙ্গীবাড়িতে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের অভিযোগে ৩ সদস্য গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১। বৃহস্পতিবার বেলা আনুমানিক সাড়ে ১১টার দিকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যাব সূত্রে জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১, সিপিসি-১, উপজেলার টঙ্গিবাড়ি বালিগাঁও বাজারের মামা ভাগিনা মার্কেটের গ/ঝ মায়ের দোয়া ফার্মেসী ভিতরে কতিপয় প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের সদস্য চলমান ২০১৯ সালের এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ও উত্তর পত্র ফাঁস করার উদ্দেশ্যে অবস্থান করছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১, সিপিসি-১ এর কমান্ডার পুলিশ সুপার মো. এনায়েত হোসেন মান্নানের নেতৃত্বে একটি দল আভিযান পরিচালনা করে।

এ সময় প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের সদস্য মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার পূর্ব বুরদিয়া গ্রামের সলিম হাওলাদারের ছেলে মজিবুর হাওলাদার (২৪), একই উপজেলার ঘোড়াকান্দা গ্রামের আনোয়ার শেখের ছেলে আল আমিন (২০), টংগীবাড়ি উপজেলার পূর্ব বালিগাঁও গ্রামের মৃত আবু তাহের বেপারীর ছেলে স্বপন বেপারীসহ (২০) প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের ৩ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়।

বালিগাঁও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে তাদের কাছ থেকে পাওয়া প্রাপ্ত প্রশ্নপত্রের সাথে চলমান পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের যাচাই করে মিল পাওয়া যায়।

গ্রেফতারকৃত আসমীদের কাছ থেকে ইংরেজি ১ম ও ২য় পত্রের প্রশ্ন ও উত্তর পত্রসহ ৩টি স্মার্ট ফোন, প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্র এর ১১ পাতা প্রিন্টেড কপি, প্রশ্নপত্র ক্রয়-বিক্রয়ের কথোপকথনের ম্যাসেঞ্জারের ২১ পাতা প্রিন্টেড কপি ও ২টি ইংরেজী গাইড বই পাওয়া যায়। এ ছাড়া আসামীদের জিজ্ঞাসা বাদে জানা যায় যে, স্মার্ট ফোন এ ম্যাসেঞ্জারের এর মাধ্যমে প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত একাধিক গ্রুপের সাথে যোগাযোগ করে বিকাশ নাম্বারে টাকা প্রেরণ করে প্রশ্নপত্র ক্রয় করে এরা শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকায় প্রশ্ন বিক্রয় করে।

ইংরেজী ২য় পত্র প্রশ্নের উত্তরপত্র পেতে দেরি হওয়ায় হাতে লেখা উত্তরপত্র ফটোকপি করে পরীক্ষার হলে বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ করে। উক্ত আসামীদের নিকট থেকে প্রশ্ন ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যবহৃত বিকাশ অ্যাকাউন্ট ও ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত কথোপকথনের প্রমাণ পাওয়া যায়।

প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের সদস্যগণ মুন্সীগঞ্জে বিভিন্ন সময়ে পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস করে স্কুল ও কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদেরকে প্রতারণা পূর্বক তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। তারা মুন্সীগঞ্জ জেলার প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের অন্যতম সক্রিয় সদস্য বলে জানা যায়।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের সদস্যদের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জের টংঙ্গীবাড়ি উপজেলার পাবলিক পরীক্ষা (অপরাধ) আইন এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (সংশোধনীয়) আইন এ মামলা রুজু প্রক্রিয়াধীন আছে।

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply