নাব্যতা সঙ্কটে শ্রীনগর খাল

মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগর উপজেলার প্রাণকেন্দ্র শ্রীনগরের প্রধন খালটির বিভিন্নস্থানে অপরিকল্পিতভাবে বাধ, কালভার্ট ও খালের উভয় পাশে স্থাপনা নির্মাণের কারণে সমতল ভূমিতে পরিণত হয়েছে। নাব্যতা সঙ্কটের কারণে অনায়াসে যেকোনো মানুষ লাফ দিয়ে খালটির এ পার হতে ওপারে যেতে পারে।

শ্রীনগরের প্রধান এ খালটিতে পানি না থাকায় ফলে শুস্ক মৌসুমে পানি সঙ্কট প্রকটভাবে দেখা দিয়েছে। খালে পানি না থাকায় সেচ কাজে কৃষকেরা দিশেহারা হয়ে পরেছে। বিভিন্ন গ্রামের কৃষকেরা বিকল্প ব্যবস্থায় আবাদি জমিতে পানি দেয়ার চেষ্টা করছে। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে থাকা খালগুলোতে বাঁধ নির্মাণের ফলে পানির প্রবাহ বাধা সৃষ্টি করছে।

সরেজমিন উপজেলার বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা গেছে, প্রভাবশালী কতৃক অবৈধভাবে খালগুলো ভরাট করে স্থাপনা নির্মাণের ফলে উপজেলার মানচিত্রে একাধিক খাল থাকলেও বাস্তবে তা আর নেই। শ্রীনগর প্রাণকেন্দ্রের খালটির দু’পাশে কতিপয় প্রভাবশালী ভূমিদস্যু দখল নিয়ে স্থাপনা নির্মাণ করেছেন।

এছাড়া খালে ময়লা আবর্জনা ফেলে পানির প্রবাহ বাধা সৃষ্টি হয়ে খালটি ভরাট হয়ে যাচ্ছে। এছাড়া স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা নিজের জায়গার সাথে খালের জায়গা মাটি ভরাট করে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের কারণে সরু হয়ে গেছে খালটি। নাব্যতার সঙ্কটের ফলে খালটি এখন প্রায় নিশ্চিহ্ন হওয়ার পথে। শ্রীনগর খালটি মাশুরগাঁও ফেরিঘাটের গোয়ালি মান্দ্রা হয়ে পদ্মা নদীতে মিশেছে।

উপজেলার প্রধান খাল ও এর শাখা-প্রশাখা ভূমিদস্যুদের কবলে পরে বিলীন হবার পথে রয়েছে। প্রধান খালসহ এর শাখা-প্রশাখা দীর্ঘ দিন ধরে খনন না করায় কৃষকদের ভবিষ্যত চরম বিপর্যয় নেমে আসবে। কৃষিকাজে সেচ সুবিধার্থে এলাকাবাসী অতি জরুরি খালগুলোর দু’পাশের অবৈধ স্থাপনা ও দখলদারদের উচ্ছেদসহ উদ্ধার এবং পুনঃখনন ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য উদ্ধর্তন কতৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন।

শ্রীনগরের প্রধান খালটির নাব্যতা সঙ্কটের ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই আমরা উপজেলার প্রধান শ্রীনগর খালসহ টি খাল খননের জন্য সরকারের কাছে আবেদন করেছি। এছাড়া শ্রীনগর খালটির দু’পারের অবৈধ দখল দারদের উচ্ছেদের ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবহত করা হয়েছে। খালটি পুনঃখনন হলে পদ্মা নদী থেকে পানি প্রবাহিত হবে। যা আমাদের আড়িয়াল বিলের প্রচুর মৎস্য ও কৃষিকাজে সহায়তা করবে।

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply