ছাপানো সংবাদে হয়রানির অভিযোগ মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমানের : প্রতিবাদ

আমাকে অত্যন্ত দু:খের সাথে বলতে হচ্ছে, মুন্সীগঞ্জ থেকে প্রকাশিত একটি দৈনিক পত্রিকায় ১৮ ফেব্রুয়ারী সোমবারের সংখ্যায় পিছনের পাতায়, জাল দলিলে উচ্ছেদের পাঁয়তারা শিরোনামে প্রকাশিত মিথ্যা সংবাদটি আমাকে ভীবনভাবে আহত করেছে। আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা এবং বয়:বৃদ্ধ একজন মানুষ হওয়া সত্বেও এই সংবাদটি আামার মান সম্মান হেয় করতে কোন ভাবে কার্পণ্য করেনি। সংবাদটিতে বলা হয়েছে আমি জাল দলিল করেছি এবং সরকারী জমি থেকে শতাধিক পরিবারকে উদচ্ছেদের পাঁয়তারা করছি। এমন ভিত্তিহীন সংবাদ আমাকে সামাজিকভাবে মারাত্মক হেয় প্রতিপন্ন করেছে।

উল্লেখ্য যে আমার ক্রয়কৃত দলিল সম্পাদিত সম্পত্তি জাল করেছি মর্মে ১৯৯৪ সালে টংগিবাড়ী থানায় আমার বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন দূর্ণীতি দমন ব্যুরো থেকে, যার নাম্বার ৭(২)৯৪। যে মামলাটি থেকে ২০১১ সালে আমাকে নির্দোষ বলে রায় প্রদান করে মামলাটি নিস্পত্তি করে দেন মামনীয় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট। যেহেতু আদালতের রায়ে মামলায় আমি কোন রকমের দোষী হইনি এবং আমার দলিলও জাল বলে গন্য হয়নি। তারপরও কিভাবে আমার বিরুদ্ধে এমন একটি প্রতিবেদন তৈরী করা হলো তা আমার বোধদয় হচ্ছেনা।

এছাড়া সরকারী জমি থেকে কোন সাহসে আমি লোকজনকে উচ্ছেদ করবো তাও ভাববার বিষয়। এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে আমি সন্ত্রাসী নিয়ে আব্দুল্লাহপুর তহছিলদারসহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের হুমকি-ধমকি দিয়েছি। যা আদৌ আমি বা আমার কোন লোকজন করিনি। এমন লেখা সম্পূর্ণ মিথ্যায় ঢাকা। এই সংবাদ প্রকাশের পর হুমকি-ধমকির বিষয়ে এবং আমার দলিল জাল বলে কোন তথ্য সাংবাদিকদের দেয়া হয়েছে কিনা দুইজন সাংবাদিক জানতে চাইলে তহসিলদার বলেন, এমন কোন কথা সে কারো বলেনি এবং এসব লিখা তার নাম ব্যবহার করে মনগড়া সংবাদ সাজিয়েছে বলেও জানান তহসিলদার রফিকুল ইসলাম।

রফিকুল ইসলামের সে বক্তব্যের ভিডিও রের্কড আমাদের কাছে গচ্ছিত রয়েছে। যা প্রতিবেদনের সাথে দেয়া হলো। এছাড়া নামজারী নিয়ে আমার নামে একই ধরনের বানোয়াট গল্প সাজিয়েছে এই প্রতিবেদনে। যেহেতু সংবাদটিতে আমার বিরুদ্ধে এতো বড় অভিযোগ টেনেছে, অথচ আমার কোন বক্তব্য না নিয়ে সংবাদ ছাপানো কতোটা অদক্ষ সাংবাদিকতার পরিচয় তাও ভেবে দেখার বিষয়। পাঠকদের মতো আমিও সেই প্রতিদেনটি পড়ে বুঝতে পেরেছি, প্রতিবেদনের প্রতিটি বিষয় অন্যের প্রয়োচনায় পরে, অপসাংবাদিকতা করে, বিভিন্নভাবে আমার ক্ষতি সাধনের চেষ্টা ছাড়া অন্য কোন উদ্দেশ্য ছিলোনা। পরিশেষে এই ধরনের সংবাদের তীব্র নিন্দা জানিয়ে যাচ্ছি।

মুক্তিযোদ্ধা শেখ হাবিবুর রহমান (খালেক)
উত্তর পাইকপাড়া, আব্দুল্লাপুর, টংগিবাড়ী, মুন্সীগঞ্জ।

Leave a Reply