মেঘনার বালুমহাল ইজারায় আপত্তি

মুন্সীগঞ্জের মেঘনা নদীর ছয়টি বালু মহল ইজারায় আপত্তি জানানো হয়েছে। এই ছয় বালু মহল ইজারা প্রদান করা হলে পরিবেশের ক্ষতিসহ নানারকম সমস্যার সৃষ্টি হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে।

জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আফসারউদ্দিন ভূঁইয়া বুধবার জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত এক পত্রে এ কারণগুলো উল্লেখ করে আবেদন জানান। পত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মেঘনা নদীর মুন্সীগঞ্জ বালু মহল, মধ্যচর রমজানবেগ বালু মহল, চর আব্দুল্লাহ বালু মহল, নয়ানগর রমজানবেগ ষোলআনিচর কালিপুরা বালু মহল, চর নাস্তি আশ্রাবদি ও চর বেতাকী বালু মহল এবং ঘাটপাড়া ও শেখদি বালু মহল ইজারা সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

কিন্তু এসব বালু মহলে স্বাভাবিক গভীরতায় এখন আর বালু নেই। কাজেই ইজারা দেয়া হলে এসব বালু মহল থেকে বালু উত্তোলন করলে মেঘনা নদীর তীরবর্তী এলাকাগুলোতে নদী ভাঙনের মুখে বসত-ভিটে, ফসলি জমি ও শিল্প প্রতিষ্ঠান বিলীন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এতে বালু মহালের ইজারাদারদের সঙ্গে স্থানীয় গ্রামবাসীদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়ে জান মালের ক্ষতি সাধন হতে পারে। তাই এসব বালু মহাল ইজারা না দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার কামনা করা হয়েছে ওই আবেদনপত্রে। আফসারউদ্দিন ভূঁইয়া জানান, যে বালু মহলগুলোর নাম উল্লেখ করা হয়েছে, সেগুলোতে এক সময় বালু ছিল। এখন আর সেখানে বালু নেই। এখন যদি ওই বালুমহলগুলো ইজারা দেয়া হয় তাহলে রাতের আঁধারে আশপাশের তীর কেটে নেয়ার আশঙ্কা থাকবে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply