সিরাজদীখানে বড় পরিসরে হচ্ছে কেমিক্যাল পল্লী: ব্যয় বাড়ছে ১৪৪৭ কোটি টাকা

আরও বড় পরিসরে হচ্ছে বিসিকের প্রস্তাবিত কেমিক্যাল পল্লী। মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানের তুলসীখালী সেতুসংলগ্ন গোয়ালিয়া, চিত্রকোট ও কামারকান্দা মৌজার ৩১০ একর জমিতে হচ্ছে এই পল্লী। এর আগে কেরানীগঞ্জে ৫০ একর জায়গায় এটি স্থাপনের প্রস্তাব ছিল।

পুরান ঢাকার সব রাসায়নিক কারখানা ও গুদামকে জায়গা করে দিতে কেমিক্যাল পল্লীর পরিসর বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। গত ২০ ফেব্রুয়ারি পুরান ঢাকার চকবাজারের চুড়িহাট্টায় কেমিক্যাল গোডাউনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ দুর্ঘটনায় ৭১ জনের মৃত্যু হয়। এরপর আবাসিক এলাকায় অবস্থিত সব রাসায়নিক কারখানা ও গোডাউন স্থানান্তরে আরও বড় পরিসর এবং তুলনামূলক কম জনবহুল এলাকায় কেমিক্যাল পল্লী স্থাপনের সিদ্ধান্ত হয়। এ কারণে প্রকল্প সংশোধন হচ্ছে। সম্প্রতি সংশোধিত প্রকল্প প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে পরিকল্পনা কমিশনে।

২০১০ সালে পুরান ঢাকার নিমতলীতে অগ্নিকাণ্ডের পর পুরান ঢাকার কেমিক্যাল কারখানা ও গোডাউন সরিয়ে নিতে কেমিক্যাল পল্লী স্থাপনের প্রকল্প নেওয়া হয়। ওই অগ্নিকাণ্ডে নিহত হন ১১৯ জন। সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি হয়। তবে প্রকল্প প্রস্তাব তৈরি থেকে অনুমোদন পর্যন্ত সময় লাগে আট বছর। ২০১৮ সালের ৩০ অক্টোবর ২০১ কোটি ৮১ লাখ টাকা ব্যয়ে কেমিক্যাল পল্লীর প্রকল্পের অনুমোদন দেয় একনেক। ২০২১ সালের মধ্যে কাজ শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়।

সংশোধিত প্রকল্প প্রস্তাবে ব্যয় এক হাজার ৪৪৭ কোটি টাকা বা ৭১৭ শতাংশ বাড়ছে। নতুন ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়েছে এক হাজার ৬৪৮ কোটি ৯০ লাখ টাকা। প্রকল্পের মেয়াদও এক বছর বাড়িয়ে ২০২২ সালের জুন করা হয়েছে। ৩১০ একর জায়গায় শিল্প প্লট হবে দুই হাজার ১৫৪টি। এতে ২০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

জানতে চাইলে বিসিকের পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) মো. আবদুল মান্নান সমকালকে বলেন, কেরানীগঞ্জের তুলনায় মুন্সীগঞ্জের প্রস্তাবিত স্থান অপেক্ষাকৃত কম জনবহুল এলাকা। এ ছাড়া পুরান ঢাকার সব কেমিক্যাল কারখানা ও গোডাউন একটি নির্দিষ্ট ও নিরাপদ স্থানে নিয়ে যেতে মুন্সীগঞ্জের এ এলাকাকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, ভূমি অধিগ্রহণ জটিলতা দূর করতে সরকারের উচ্চ মহল থেকে সহায়তার আশ্বাস পাওয়া গেছে। ফলে ভূমি অধিগ্রহণের কোনো সমস্যা হবে না এবং প্রকল্পের কাজ দ্রুত সময়ে করা সম্ভব হবে।

পরিকল্পনা কমিশনের কর্মকর্তারা জানান, প্রকল্প প্রস্তাবের ওপর যাচাই-বাছাইয়ের কাজ চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রকল্প প্রস্তাবের মূল্যায়ন কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হবে। এর পর সংশোধিত প্রস্তাব চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য একনেকে উঠানো যাবে।

কর্মকর্তারা আরও জানান, কেমিক্যাল পল্লী স্থাপন প্রকল্পের জমি পাওয়ার বিষয়ে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে কোনো পত্র এখনও পাওয়া যায়নি। সংশোধিত প্রস্তাবে তিনটি মৌজার ভূমি অধিগ্রহণ ও উন্নয়নে যথাক্রমে এক হাজার তিন কোটি এবং ১৩০ কোটি টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে।

সমকাল

Leave a Reply