প্রকাশিত সংবাদের ব্যাখ্যা ও সমাধান

গত ১০ এপ্রিল দুটি অনলাইন পোর্টালে প্রকাশিত “সিরাজদিখান থানায় ৫ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে চাদাবাজির অভিযোগ” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। যাহা অসত্য, মিথ্যা, বানোয়াট এবং উদ্দেশ্য প্রনদিত। সাংবাদিকদের সুনাম নষ্ট করার লক্ষে একটি কুচক্রি মহল অপপ্রচার করে হেয় করার চেষ্টা করছে। এবং অনলাইন পোর্টালের উক্ত সংবাদটি ফেইসবুকে একটি ফ্যাক আইডি দিয়ে আপ করে। এ বিষয়ে থানায় একটি জিডি করা হয়েছে।

আব্দুল্লাহ আল মাসুদ (কে টিভির প্রতিনিধি) ও নাছির উদ্দীন (দৈনিক মানবজমিন প্রতিনিধি) এই দুই জন সাংবাদিক ঘটনার দিন অন্য উপজেলায় সংবাদের কাজে ব্যাস্ত ছিলেন, তাদের নাম ও সুনাম নষ্ট করার জন্য অন্য ঘটনায় জড়িয়ে দেওয়া হয়। পরে তাদের নির্দোষ প্রমানিত হয়। উপজেলার বয়রাগাদী ইউনিয়নের দুই সংবাদিক হওয়ায় তাদের নামে শত্রুরা বসত এ অভিযোগ করানো হয়েছিল। অভিযোগটি মিথ্যা প্রমানিত হয়।

অন্য তিন সাংবাদিক জুবায়ের, লিংকন ও চমক, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একটি ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে যায় উপজেলার বয়রাগাদী গ্রামে। তাই একটি কুচক্রি মহল ঘটনার তিনদিন পর ঘটনায় জড়িত ব্যাক্তিকে দিয়ে সত্যতা যাচাইকারিদের বিরুদ্ধে মিথ্যা চাদাদাবীর অপবাদ দেয়।

সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দুই পক্ষকে নিয়ে বসে যাচাই করে চাদাদাবীর প্রমান না পাওয়ায় ঘটনার ভুল বুঝাবুঝির সমাধান করে দেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, দুই ইউপি চেয়ারম্যান, প্রেসক্লাব সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ অনেকে। এছাড়া এ বিষয়ে কাউকেই বারাবারি না করার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান জানিয়েদেন। এর আগে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে থানায় একটি জিডি করা হয় যাতে ফেইসবুকে কেউ যদি আবার অপপ্রচার করে তবে তার বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে।

আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, নাছির উদ্দীন, জুবায়ের, লিংকন ও চমক।

Leave a Reply