গজারিয়ায় বিদ্যালয় ভবন পরিত্যক্ত পরীক্ষা হচ্ছে তাবুর নীচে

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার দুটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন পরিত্যক্ত ঘোষণা করার কারণে বৈশাখের প্রচণ্ড দাবদাহে তাবুর নীচে বসে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করছে কোমলমতি চার শতাধিক শিক্ষার্থী। গজারিয়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মমতাজ বেগম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

সংশ্লিষ্ট ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি উপজেলা প্রকৌশল কার্যলয় ৭৫ নম্বর বড়ইকান্দি ভাটেরচর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৭৩ নম্বর জামালদী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনগুলো পরিত্যক্ত ঘোষনার পর চার শতাধিক শিক্ষার্থী বৈশাখের গরম ও দাবদাহ উপেক্ষা করে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করছে তাবুর নীচে বসে।


নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষক জানান, যে কোন সময় শিশুরা অসুস্থ হয়ে পড়ার আতঙ্কে থাকি। একাধিক শিক্ষার্থী ক্ষোভের সঙ্গে জানায়, খোলা জায়গায় মনোযোগ ঠিক রাখতে পারি না, গরমে আমাদের কষ্ট হয়।

উপজেলা শিক্ষা কার্যলয় সূত্রে জানা যায়, শিক্ষা অফিসের কোন বাজেট না থাকায় তাবু ভাড়া পরিশোধ করতে বিরম্বনা পোহাতে হয়।

গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাসান সাদী জানান, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদেরকে বিকল্প ব্যবস্থায় ক্লাস পরিক্ষা অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা গ্রহনের অনুরোধ করা হয়েছে। উপজেলা প্রকৌশল কার্যলয় সূত্রে জানা যায়, স্কুল দুটির নতুন ভবন নির্মাণের সব প্রক্রিয়া শেষ পর্যায়ে।

অবজারভার

Leave a Reply