শ্রীনগরে পরিত্যক্ত ভবনে চলছে পাঠদান

শ্রীনগরে একটি বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান। এতে করে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শ্রেণী কক্ষে আতঙ্কে থেকে পাঠদান গ্রহণ করছেন। উপজেলার সদারামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটি ৬ বছর আগেই পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হলেও ঝুঁকিপূর্ণ ওই ভবনেই চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার ষোলঘর ইউনিয়নের ১৯নং সদারামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের ৩টি কক্ষই পরিত্যক্ত ঘোষণা করে লাল রংয়ের ফিতা টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়েছে। শ্রেণী কক্ষের দেয়াল ও ছাদের ভিমগুলো থেকে পলেস্তরা খসে গিয়ে রড বেরিয়ে এসেছে। শিক্ষার্থীদের মাথার ওপরেই রয়েছে ঝুঁকিপূর্ণ পলেস্তরা। যেকোন সময় তা ধসে পরে মারাত্মক দুর্ঘটনার শিকার হতে পারে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।

এছাড়াও ভবনের ফ্লোরের নিচ থেকে মাটি সরে গিয়ে আরও ভয়ঙ্কর অবস্থায় দাঁড়িয়ে রয়েছে ভবনটি। প্রবল বৃষ্টির মধ্যে ভবনটি যেকোন সময়ে ধসে পরতে পারে বলে ধারণা করছেন স্থানীয়রা। বিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা ৩১৯ জন, বর্তমান শিক্ষক ৬ জন ও ২টি পদে শিক্ষক শূন্য রয়েছে। এ সময় কোমলমতি শিক্ষার্থীরা জানান, শ্রেণী কক্ষে পাঠদানের সময় আতঙ্কে থাকি। কখন যে ভবনের ছাদ ভেঙ্গে পরে। বৃষ্টির দিনে ভয়ে বাধ্য হয়েই অনেকে স্কুলে আসিনা।

সহকারী শিক্ষক সুভাগ্য চন্দ্র ম-ল বলেন, এ পর্যন্ত একাধিকবার ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের লিখিত আবেদনের মাধ্যমে জানানো হয়েছে। এতে করে ভবনটি কয়েক বছর পূর্বে পরিত্যক্ত ঘোষণাও করা হয়েছে। কিন্তু নতুন ভবন নির্মাণের জন্য সয়েল টেস্ট করা হয়েছিল বলে তিনি জানান। সদারামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ মাসুদ পারভেজের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভবন পরিত্যক্ত ঘোষণা দেয়ার পরে একাধিকবার উপজেলা শিক্ষা অফিস ও ইউএনও অফিসের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। এ বিষয়ে জানতে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে গিয়ে শিক্ষা অফিসারকে উপস্থিত পাওয়া যায়নি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জাহিদুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জরাজীর্ণ ভবনটির বিষয়ে ডিসি স্যারের সঙ্গে আলোচনা করব। আপাতত অস্থায়ীভাবে পাঠদানের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নতুন ভবন নির্মাণে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply