বসছে পদ্ধা সেতুর ১২তম স্প্যান, দৃশ্যমান হবে ১৮শ’ মিটার

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের স্বপনের পদ্মা সেতুর ১২তম স্প্যান বসছে সোমবার (৬ মে)। এটি বসলে পদ্মা সেতুর ১ হাজার ৮০০ মিটার দৃশ্যমান হবে। এরআগে ৩ মে (শুক্রবার) মাওয়া ও জাজিরার মাঝামাঝি ২০ ও ২১ নম্বর পিলারের উপর বসানোর কথা ছিল। সে লক্ষে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন ছিল। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’।

সেতু বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. হুমায়ুন কবীর জানান, সোমবার পদ্মা সেতুর ১২তম স্পেনটি বসানো হবে। স্পেনটির বসানোর মাধ্যমে জাজিরা প্রান্তে পদ্মা সেতুর ১৮০০ মিটার দৃশ্যমান হবে।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে সেতুর প্রায় ৭৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। চলতি বছরের মধ্যে সবকটি স্পেন বসিয়ে সেতুটি দৃশ্যমান করে তুলাবো বলে আশা করছি। আগামী ১০ মে পদ্মা সেতুর ১৩তম স্প্যান ওঠার কথা রয়েছে। এ লক্ষে এখন শেষ সময়ের প্রস্তুতি চলছে। ৩-বি নামের এই স্প্যানটি মাওয়া প্রান্তের ১৪ ও ১৫ নম্বর খুঁটির ওপর বসানো হবে স্প্যানটি।

বৈরী আবহাওয়ায় উত্তাল পদ্মায় ১৫০ মিটার দৈর্ঘের ও তিন হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যানটি নিয়ে রওয়ানা দিকে পারেনি ৩ হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার ‘তিয়ান ই’ নামে জাহাজটি। এরপর স্প্যানটি এখন মাওয়া কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে রাখা হয়। এটি বসলে ১৮০০ মিটার দৃশ্যমান হবে। এরআগে সর্বশেষ ২৩ এপ্রিল জাজিরায় ১১তম স্প্যানটি বসানোর মধ্য দিয়ে ১৬৫০ মিটার সেতু দৃশ্যমান হয়।

পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে গোটা দেশের যোগাযোগব্যবস্থার ব্যাপক উন্নতি হবে। দেশের অর্থনীতিতে নতুনমাত্রা যোগ হবে। পদ্মা সেতুর দুই পাড়ে গড়ে উঠবে বিশ্বমানের শহর। কলকারখানায় ভরে উঠবে এ এলাকা। শ্রমজীবী মানুষের ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

সর্বক্ষেত্রে ব্যবসা-বাণিজ্যের ব্যাপক প্রসার ঘটবে বলে আশা করছেন পদ্মা পাড়ের মানুষ। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার প্রায় সাত কোটি মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে এ সেতু নির্মাণের মধ্য দিয়ে।

দোতলা এ সেতুর নিচতলায় চলবে ট্রেন। স্থাপন করা স্পেনগুলোয় এখন রেলের স্লাব বসানোর কাজ চলছে।

পূর্ব পশ্চিম

Leave a Reply