পদ্মা সেতুতে বসলো ১২তম স্প্যান

মুন্সীগঞ্জের মাওয়া ও শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তের মাঝামাঝি স্থানে অস্থায়ীভাবে পদ্মা সেতুর ১২তম স্প্যান বসানো হয়েছে। সোমবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সেতুর ২০ ও ২১ নম্বর পিলারের ওপর এ স্প্যান বসানো হয়। এর মধ্য দিয়ে পদ্মা সেতুর ১ হাজার ৮শ মিটার দৃশ্যমান হল।

প্রকৌশলী সূত্রে জানা যায়, এ স্প্যানটি অস্থায়ী ভাবে বসানো হয়েছে।

পদ্মা সেতুর সহকারী প্রকৌশলী আহসান উল্লাহ মজুমদার শাওন জানান, পরবর্তীতে স্প্যানটি সেতুর ২৪-২৫ নম্বর পিলারের ওপর স্থানান্তর করা হবে। ২৪ ও ২৫ পিলারের কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় এবং স্প্যান রাখার জায়গা সংকুলান না হওয়ার কারণে এটি অস্থায়ীভাবে ২০-২১ নম্বর পিলারের ওপর বসানো হয়েছে। ২৪-২৫ নম্বর পিলার সম্পন্ন হওয়ার পর এটি সরিয়ে নেওয়া হবে। ৫-এফ নম্বর স্প্যানটি গত শুক্রবার বসানোর পরিকল্পনা থাকলেও ঘূর্ণিঝড় ফণীর কারণে তা বাতিল করা হয়।

এদিকে, সোমবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে ধূসর রংয়ের ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ও ৩ হাজার ১৪০ টন ওজনের ৫-এফ নম্বর স্প্যান নিয়ে রওনা হয় ৩ হাজার ৬শ টন ধারণ ক্ষমতার ভাসমান ক্রেন তিয়ান-ই। সকাল সোয়া ১০টার দিকে স্প্যান বহনকারী ভাসমান ক্রেন সেতুর ২০ ও ২১ নম্বর পিলারের কাছে পৌঁছে। এরপর বেলা সাড়ে ১২টার দিকে অস্থায়ীভাবে ১২তম স্প্যানটি সেতুর ওপর বসানো হয়।

পদ্মা সেতুর প্রকৌশল সূত্রে আরও জানা যায়, পদ্মা সেতুতে ২৯৪ পাইলের মধ্যে ২৬২টি পাইল ড্রাইভ সম্পন্ন হয়েছে। বাকি ৩২টি পাইল ড্রাইভের কাজ চলছে। ৪ টি পিলারের মধ্যে কাজ শেষ হয়েছে ২৫টি পিলারের। বাকি ১৭টি পিলারের কাজ চলছে। ৪১টি স্প্যানের মধ্যে বসানো হয়েছে ১২টি স্প্যান। আরও ২৯টি স্প্যান বসবে। এছাড়া ১৩তম স্প্যানটি মে মাসেই বসানোর কথা রয়েছে।

বহুমুখী পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নে সবমিলিয়ে খরচ হচ্ছে প্রায় ৩০ হাজার ১৯৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে মূল সেতু নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ১২ হাজার ১৩৩ কোটি টাকা। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদী শাসনের কাজ করছে সে দেশেরই আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দুই স্তর বিশিষ্ট। স্টিল ও কংক্রিট দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো। সেতুর ওপরের স্তরে থাকবে চার লেনের সড়কপথ এবং নিচের স্তরটিতে থাকবে একটি একক রেলপথ। বিশ্বের সবচেয়ে বড় হ্যামার দিয়ে কাজ চলছে পদ্মা সেতুর। বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় এ সেতু নির্মাণে প্রতিদিন দেশি-বিদেশী ৩-৪ হাজার শ্রমিক কাজ করছে।

অবজারভার

Leave a Reply