শ্রীনগরে দিন দিন কমছে আবাদি জমি: ফসলি জমির মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে ফসলি জমির মাটি ইটভাটায় চলে যাওয়ায় দিন দিন কৃষিজমির পরিমাণ কমে আসছে। বিগত তিন দশক ধরে ফসলি জমির মাটি কেটে ইটভাটায় বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে। আর জমির মালিকরা মাটি কেটে পুকুর তৈরি করছেন। এ অবস্থায় আবাদি জমির পরিমাণ কমে আসছে।

উৎপাদিত ফসলের ন্যায্য দাম না পাওয়ায় হতাশাগ্রস্ত কৃষকরা তাদের জমির মাটি কেটে ইটভাটায় সরবরাহ করছেন। পাশাপাশি ফসলি জমিতে পুকুর খনন করছেন। পরবর্তীকালে ওই পুকুরে মাছ চাষে ঝুঁকছেন। মাছ চাষে অধিক লাভবান হওয়ার আশায় দিনের পর দিন উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ফসলি জমির মাটি কেটে পুকুর তৈরি করা হচ্ছে। উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান আসাদ জানিয়েছেন, উপজেলায় সরকারি হিসাবে ১২ হাজার ৭২টি পুকুর রয়েছে। তবে বেসরকারি হিসাবে পুকুরের সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার হবে।

জেলার অধিকাংশ ইটভাটা সিরাজদিখান উপজেলায় অবস্থিত। পাওয়ারটিলার ও ট্রাক্টরে করে ইটভাটায় মাটি কেটে নিয়ে যাওয়ার ফলে কোটি কোটি টাকায় নির্মিত পাকা সড়কপথ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। একটু বৃষ্টি হলেই কাদা-পানিতে সড়কগুলো পিচ্ছিল হয়ে যায়। দুর্ঘটনায় পতিত হয় অনেক যানবাহন। জমির মাটি কেটে ইঞ্জিনচালিত ট্রাক্টরে করে পরিবহনের কারণে পাকা সড়কের পিচ উঠে গিয়ে খানাখন্দ ও ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হচ্ছে। আবার কৃষকের মধ্যে নানা বিভ্রান্তি ছড়িয়ে এবং ফসলি জমির মাটি কেটে পুকুর তৈরিতে প্ররোচিত করা হচ্ছে। ইটভাটার মালিক ও এক শ্রেণির দালালচক্র কৃষকের দারিদ্র্যতার সুযোগ নিয়ে এসব করছে। ইটভাটার কারণে এলাকার আম, লিচু, নারিকেলসহ বিভিন্ন গাছে ফল ধরছে না, ধরলেও তা কমে যাচ্ছে। ইটভাটাগুলো নিয়ন্ত্রণে রাখতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কোনো উদ্যোগ নেই।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শান্তনা রানী জানান, ২০১৮ সালের জরিপ অনুযায়ী শ্রীনগরে ১৫ হাজার ২৮৫ হেক্টর কৃষিজমি রয়েছে। অথচ পাঁচ বছর আগেও ১৭ হাজার ২৪ হেক্টরের বেশি কৃষিজমি ছিল। এলাকায় কৃষিজমিতে মাটি কাটা ও পুকুর খনন অব্যাহত থাকলে জীববৈচিত্র্যসহ পরিবেশের বিপর্যয় ঠেকানো অসম্ভব হয়ে পড়বে।
এ ব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম জানান, সরকারি খাল বা পুকুর এক করে কৃষিজমিতে মাটি কাটা ও পুকুর খনন করা চলবে না। তারপরও যদি কেউ এ অন্যায় কাজ করে, তাহলে তার বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার বিজ নিউজ

Leave a Reply