সিরাজদিখানে ফ্রান্স প্রবাসীর বাসায় সন্ত্রাসী হামলা, ৩ জন গুরুতর আহত, নগদ টাকা ও স্বর্ণ লুট

নাছির উদ্দিন: সিরাজদিখানের লতব্দী ইউনিয়নের খিদিরপুর গ্রামের মিজানুর রহমান (৪৯) (ফ্রান্স প্রবাসী)। তিনি ফ্রান্স আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক। মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে তার খিদিরপুরের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। এ হামলায় ৩ জন গুরুতর আহত হয় এবং সন্ত্রাসীরা নগদ ২৬ লাখ টাকা ও ২০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

এলাকাবাসীরা জানায়, মাগরেবের নামাজের পর হঠাত কিছু লোক এসে মিজানুর রহমানদের বাড়িতে হামলা করে। এ ঘটনায় ৫/৬জন আহত হয় এর মধ্যে তিন জন গুরুতর আহত হাবিবুর রহমান (৪৫), মুকুল (৩৫) ও সজিব (৩০) কে উপজেলা স¦াস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। হাবিবুরদের জায়গা ইটের ভাটায় ব্যবহার করছে আবার তাদের মারধর করেছে। রাতের বেলায় বাড়িতে হামলা করে দরজা ভেঙ্গে তাদের মারধর এটা একটা জঘন্য কাজ করেছে ইকবালরা।


মিজানুর রহমান জানান পূর্ব রামকৃষ্ণদী গ্রামের নুর হোসেন (৩০), ইকবাল হোসেন (৩৩), জহির (৩১), জুয়েল (২৮), আসাদুল (৩৫), আব্বাস আলী (২৭), নুরুল ইসলাম (৫০), জমির হোসেন (৩৫), মিয়ার হোসেন (৩২) সোহাগ (৩২) সহ ৪০ জনেরও বেশি আমার বাড়িতে হামলা চালায়। বাড়ির লোকদের মারধর করে। আমার ছোট ভাইকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে জখম করে এবং আমার দুই ভাগিনাকে পিটিয়ে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে। এ সময় আমাদের বাড়ি থেকে প্রায় ১৬ হাজার ৭শ’ ইউরো, আমার ফ্রান্স এর পাসপোর্ট, নগদ প্রায় ১১ লক্ষ টাকা, দুটি মোবাইল ও ২০ ভড়ি স্বর্ণ লুট করে নিয়ে গেছে। সব মিলিয়ে প্রায় ৩৫ লাখ টাকার ক্ষতি করে। তাদের সাথে জমি নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছিল।

আহত হাবিবুর রহমান বলেন, ইট ভাটায় আমাদের জমি দেয়নি বলে এ হামলা করেছে জহিরুলরা। তারা পরিকল্পিত ভাবে সন্ধ্যারপরে আমাদের বাড়িতে এসে আমার ও আমার ভাগিনার মাথায় আঘাত করলে মাথা ফেটে যায়। আমি তার পরে আর কিছু বলতে পারিনা।

ইকবাল হোসেন জানান, আমি ৪দিন ধরে চক্ষু চিকিৎসায় ঢাকা হাসপাতালে। আমি শুনেছি মঙ্গলবার ইফতারের পর পর আমার ভাতিজা ইছসহাক (১৮) হাবিবুরদের বাড়ির সামনে দিয়ে যাচ্ছিল। এ সময় হাবিবুররা কয়েকজন আমার ভাতিজাকে আমগাছে ঢিল দিয়েছে বলে তাদের বাড়ি ধরে নিয়ে ঘরে আটকিয়ে মারধর করে। খবর পেয়ে আমাদের বাড়ির লোকজন তাদের বাড়ি যায়। ঘরের ভীতর দরজা আটকিয়ে পিটাচ্ছে দেখে আমাদের বাড়ির লোকজন দরজা ভেঙ্গে তাকে উদ্ধার করে এ সময় দুই পক্ষে হাতাহাতি হয়।

ইটভাটা মালিক জহিরুল বলেন, সন্ধ্যার পর থেকে আমি আমার ইটভাটায় ছিলাম। পরে বাজারে এসে মারামারির কথা শুনি।

সিরাজদিখান থানার অফিসার ইন-চার্জ বলেন, মামলা হয়েছে। ২ জনকে আটক করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply