শ্রীনগরে পল্লী বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার নিয়ে অসন্তোষ চরমে (ভিডিও)

আরিফ হোসেন: শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন দোতলা ভবনের একটি ফ্ল্যাটে পরিবার পরিজন নিয়ে ৩ বছর ধরে ভাড়া থাকেন শামীম আহমেদ (ছদ্ম নাম)। গত এক বছরে তিনি বিদ্যুৎ বিল দিয়েছেন প্রতিমাসে ১ হাজার থেকে ১৩শ টাকার মধ্যে। এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি তার পুরাতন মিটারের স্থলে লাগানো হয় প্রিপেইড মিটার। মিটারের সাথে অগ্রিম দেওয়া হয় ১০০ টাকা। ২ দিনেই সেই টাকা শেষ হয়ে গেলে তিনি ২১ এপ্রিল শ্রীনগর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে গিয়ে ৩ হাজার টাকার টোকেন নেন। টোকেন হাতে নিয়ে ধাক্কা খান। শুরুতেই তার কাছ থেকে মিটার ভাড়া, ডিমান্ড চার্জ ও ভ্যাট বাবদ কেটে নেওয়া হয়েছে ২০৫ টাকা। তার মানে তিনি ২৭৯৫ টাকার বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে পারবেন। বাসায় এসে আগের বিদ্যুৎ বিলের সাথে মিলিয়ে দেখেন আগে প্রতিমাসে মিটার ভাড়া ছিল ১০ টাকা আর প্রিপেইড মিটারের ভাড়া ৪০ টাকা, ডিমান্ড চার্জ ছিল ২৫ টাকা এখন ৫০ টাকা। বিদ্যুৎ ব্যবহার না করেই তাকে বেশী গুনতে হচ্ছে ৫৫ টাকা। এক সপ্তাহ পর শামীম আহমেদ ব্যালেন্স চেক করে দেখেন প্রতিদিন গড়ে তার প্রায় ৯০ টাকা কেটে নেওয়া হচ্ছে। এর থেকে মুক্তি পেতে তিনি বাসার ৩২ ওয়াটের ৫ টি ও ১১ ওয়াটের ২ টি এনার্জি বাল্ব পাল্টে ৭ ও ৫ ওয়াটের এলইডি বাল্ব লাগান। ৫ দিন পর ব্যালেন্স চেক করে দেখেন গড়ে তার ৭৫ টাকা করে কাটা হচ্ছে। এভাবে ১ মাস পার হলে দেখেন তার বিদ্যুৎ বিল হয়েছে ২৫৬৫ টাকা। বাল্ব পাল্টানো সত্ত্বেও তার বিল এসেছে আগের তুলনায় দ্বিগুনেরও বেশী। বিষয়টি তিনি ফ্ল্যাটের মালিককে জানান। মালিক শ্রীনগর পল্লী বিদ্যুতে যোগাযোগ করলে তাকে পল্লী বিদ্যুতের কর্তারা পাত্তা না দিয়ে ঢাকায় যোগাযোগ করতে বলেন। পরে অনেক পিরাপিরিতে একজন প্রকৌশলী মিটারের কাছে এসে জানান আরথিন সংযোগে ভুল আছে। পরদিনই মালিক মিস্ত্রি ডেকে তা ঠিক করে দেন। কিন্তু লাগাম ছাড়া বিলের কোন পরিবর্তন হয়নি। শামীম আহমেদ প্রশ্ন রাখেন মিটার কোনটা সঠিক এনালগ না প্রিপেইড? এর প্রতিকারই বা কি তিনি তা জানেননা।

একই ভবনের আরেক ভাড়াটিয়া আবুল হাশেম ( ছদ্ম নাম) । ঘরে তার প্রসূতি মেয়ের ৫ দিন বয়সী শিশু। বৃহস্পতিবার মাঝ রাতে হঠাৎ তার প্রিপেইড মিটারের টাকা শেষ হয়ে গেলে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পল্লী বিদ্যুতের সরবরাহকৃত লিফলেট অনুসারে ইমারজেন্সি ব্যালেন্স নেওয়ার জন্য মিটারের ডবল জিরো চাপেন। কিন্তু মিটারের স্ক্রিনে লেখা উঠে ইরর। মোবাইলের আলো জালিয়ে অসহ্য গড়মে প্রসুতি ও নবজাতকে নিয়ে রাত পার করেন। পরদিন পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে প্রিপেইড টোকেন কিনতে গিয়ে জানতে পারেন শুক্র ও শনিবার বন্ধ তাই টোকেন নিতে হলে রবিবার আসতে হবে। বাজার থেকে চার্জার ফ্যান কিনে তা পাশের ফ্ল্যাট থেকে চার্জ করিয়ে ও মোমের আলো দিয়ে কোন রকমে দুদিন কাটান।

এই ভবনের আরেক ভাড়াটিয়া আব্দুল্লাহ বাকী (ছদ্ম নাম) । তার পুরাতন মিটার খুলে প্রিপেইড মিটার লাগানো হয়েছে এপ্রিল মাসের শুরুর দিকে। তিনি প্রিপেইড টোকেন রিচার্জ করেছেন ১৬ এপ্রিল। কিন্তু তাকে যে পুরাতন মিটারের বিল দেওয়া হয়েছে তাতে দেখানো হচ্ছে তিনি পুরাতন মিটার ব্যবহার করেছেন ৬ মে পর্যন্ত। আজগুবি বিল দেখে তিনি চমকে উঠেন। ছুটে যান শ্রীনগর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে। কিন্তু কোন রকম পাত্তা না দিয়ে তাকে বলা হয় ৬ মে পর্যন্তই বিল পরিশোধ করতে হবে।

প্রিপেইড মিটারে ব্যালেন্স চেক, ইমারজেন্সি ব্যালেন্স, মোট ব্যবহৃত ইউনিট সহ বিভিন্ন অপশন থাকলেও যার উপর ভিত্তি করে বিল হচ্ছে অর্থাৎ পূর্বের মাসে কত ইউনিট ব্যবহার হয়েছে তা দেখার কোন অপশন নেই।

শামীম আহমেদ,আবুল হাশেম, আব্দুল্লাহ বাকীর মত অনেকের সাথেই আলাপ করে দেখা গেছে পল্লী বিদ্যুতের প্রিপেইড মিটার নিয়ে শ্রীনগর বাজার, উপজেলা সদরের আবাসিক ভবন সমূহের গ্রাহক সহ বিভিন্ন গ্রাহকদের মধ্যে দেখা দিয়েছে চরম অসোন্তষ। সরজমিনে শ্রীনগর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে গিয়ে দেখা গেছে টোকেন নিতে এসে গ্রাহকরা তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। তর্কে জড়িয়ে পরছেন।

শ্রীনগর পল্লী বিদ্যুৎ অফিস সূত্রে জানা গেছে, দেশের ১২টি পল্লী বিদ্যুতে প্রিপেইড মিটার স্থাপন করা হচ্ছে। মুন্সীগঞ্জের মধ্যে মুন্সীগঞ্জ সদর ও শ্রীনগর উপজেলায় এগুলো স্থাপন করা হবে। শ্রীনগর উপজেলা সদরে এখনো পর্যন্ত ৩ হাজার ৫ শ প্রিপেইড মিটার স্থাপন করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে এই সাবষ্টেশনের অন্তর্ভূক্ত ২৫ হাজার প্রিপেইড মিটার স্থাপন করা হবে।

শ্রীনগর পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম মিজানুর রহমান জানান, এটি সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পের অংশ। প্রিপেইড মিটার একটি নতুন বিষয় হওয়ায় গ্রাহকদের বুঝতে সময় লাগছে। তারপরও কোন রকম অভিযোগ আসলে আমরা উর্ধতন কতৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে তা সমাধানের ব্যবস্থা করছি।

Leave a Reply