সিরাজদীখানে ৪ কোটি টাকা নিয়ে উধাও ইটভাটার মালিক

ইমতিয়াজ উদ্দিন বাবুল: সিরাজদীখান উপজেলায় ‘জামাল ব্রিক ম্যানুফ্যাচারার কোং’ নামে একটি ইটভাটা মালিকের প্রতারণার শিকার হয়েছেন সিরাজদীখানের চিত্রকোট ইউনিয়ন ও এর আশপাশের এলাকার শতাধিক ব্যবসায়ী।

ইট বিক্রির জন্য অগ্রিম টাকা নিয়ে শতাধিক ব্যবসায়ীর প্রায় চার কোটি টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে ইটভাটার মালিক। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিরা অভিযোগ করেন, চিত্রকোট ইউনিয়নের মরিচার ইটভাটা ‘জামাল ব্রিক ম্যানুফ্যাচারার কোং’-এর মালিক শাহ আলম ফরিদ দীর্ঘদিন থেকে ওই এলাকায় একটি ইটভাটার কার্যক্রম পরিচালিত করে আসছিল। তারা বিভিন্ন সময়ে কম দামে ইট দেওয়ার নামে শতাধিক মানুষের কাছ থেকে অগ্রিম প্রায় চার কোটি টাকা অগ্রিম নেয়। ইট দেওয়ার নির্দিষ্ট সময়ে ক্রেতাদের কাছে ইট সরবরাহ না করে ইটভাটা মালিক শাহ আলম ফরিদ উধাও হয়ে যায়।

প্রতারণার শিকার মরিচার ফারুক মিয়া জানান, প্রায় তিন বছর আগে ইট দেওয়ার নাম করে আমার কাছ থেকে ২২ লাখ টাকা গ্রহণ করে ‘জামাল ব্রিক ম্যানুফ্যাচারার কোং’ ইটভাটার মালিক শাহ আলম ফরিদ। নির্দিষ্ট সময়ে তারা ইট না দিয়ে পালিয়ে গেছে।

একই অভিযোগ করেন লুৎফর রহমান নামে আরেক ভুক্তভোগী। তিনি জানান, তার কাছ থেকে ৬৬ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে ইটভাটা মালিক। ইট না দিয়ে তারা এখন উধাও। চিত্রকোট ইউপি চেয়ারম্যান সামছুল হুদা বাবুল জানান,প্রতারণার শিকার অনেকেই আমার কাছে এসেছিলেন। এলাকার ব্যবসায়ীদের মোটা অঙ্কের লাভের প্রলোভন দেখিয়ে ইটভাটার মালিক প্রায় ৪ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। কিন্তু এখন তাদেরকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তবে তার বাড়ি নারায়ণগঞ্জ জেলার ফতুল্লা থানার ধর্মগঞ্জ এলাকায় বলে জানা গেছে। সিরাজদীখান ইটভাটা মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান জানান, ‘জামাল ব্রিক ম্যানুফ্যাচারার কোং’ আমাদের সমিতির কোনো সদস্য না। তাকে সদস্য করার অনেক চেষ্টা করেও আমরা ব্যর্থ হয়েছি।

ইউএনও আশফিকুন নাহার জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি, তবে খুব শিগগিরই ব্যবস্থা নেব।

সমকাল

Leave a Reply