নববধূকে শ্বাসরোধে হত্যা, ঘাতক স্বামী অধরা

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় বিয়ের মাত্র ২ মাস ১৪ দিনের মাথায় যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ উঠেছে মাদকাসক্ত স্বামীর বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে নিহত সোহানা আক্তারের মরদেহের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

এর আগে বুধবার ১ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন এবং আত্মহত্যার প্ররোচনার দায়ে স্বামী সাইদুলকে আসামি করে রাতে নিহতের বাবা মো. সোহেল বাদি হয়ে মামলা করেছেন। তবে এখনও পর্যন্ত ঘাতক স্বামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গজারিয়া উপজেলা বাউশিয়া ইউনিয়নে চর বাউশিয়া বড়কান্দি গ্রামে স্ত্রীর বাড়িতে সোহানা আক্তার (১৭)-কে গলাটিপে হত্যা করে স্বামী সাইদুল ইসলাম (২৩) পালিয়ে যায়। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনার স্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে বুধবার সন্ধ্যায় মুন্সীগঞ্জ জেলা হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

সোহানার আত্মীয়-স্বজনরা জানান, গত ২৯ শে মার্চ নয়াকান্দি গ্রামের মো. আজিজ মিয়ার ছেলে সাইদুল ইসলামের সঙ্গে দিনমজুর (রিকশাচালক) সোহেলের মেয়ে সোহানার বিবাহ হয়। বিয়ের সময় নগদ ১ লাখ ৩৫ টাকা এবং স্বর্ণালঙ্কার দেয়া হয়। পরে জানা যায় সাইদুল মাদকাসক্ত। বিবাহের পর থেকে যৌতুক বাবদ আরও ১ লাখ টাকা এবং নেশার টাকার জন্য প্রায় প্রতিদিনই সোহানা আক্তারকে নির্যাতন করতে থাকে। গত এক সপ্তাহ আগে সোহানা বাপের বাড়িতে চলে আসে। এরপর বুধবার সকালে সোহানার কাছে নেশার জন্য টাকা চায় সাইদুল। টাকা দিতে অসম্মতি জানালে সোহানাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে মরদেহ ঘরের বাশের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে। পরে ঘরের দরজা শিকল দিয়ে আটকিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় সোহানার বাড়িতে কেউ ছিল না।

এ বিষয়ে গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হারুন অর-রশিদ জানান, ১ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন ও আত্মহত্যার প্ররোচনার দায়ে স্বামী সাইদুলকে আসামি করে বুধবার রাতে সোহানার বাবা বাদি হয়ে মামলা করেছেন। অপরাধী সাইদুলকে গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।

অবজারভার

Leave a Reply