নামের মিলে জেলে নারী, এএসআই ক্লোজড

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলায় নামের মিল থাকায় মূল আসামির পরিবর্তে জেল খেটেছেন আরেক নারী। এদিকে তাকে আটক করে গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলে পোরায় পুলিশ লাইনে ক্লোজড হয়েছেন ফরিদগঞ্জ থানার সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মাজেদ।

চাঁদপুর পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির আজ শনিবার তাকে এই সংক্রান্ত চিঠি প্রদান করেছেন। এ ছাড়া ২৪ ঘণ্টা কারাভোগের পর আনোয়ারা বেগম (৪০) নামে ওই নারীকে আদালতের নির্দেশে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

আনোয়ারার মামাতো ভাই বেলাল হোসেন জানান, মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর থানায় দায়ের করা মামলায় (জি আর ১৪০/২০০০ সাল) ৪২০ ধারায় এক বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার জরিমানা এবং অনাদায়ে তিন মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয় আনোয়ারা বেগম (৫৫) নামে এক নারীকে। তিনি ফরিদগঞ্জ উপজেলার রূপসা দক্ষিণ ইউনিয়নের সাহেবগঞ্জ গ্রামের জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী।

আদালতের রায়ের পর মামলার ওয়ারেন্ট ফরিদগঞ্জ থানায় এলে গত বৃহস্পতিবার পুলিশের এএসআই মাজেদ রূপসা দক্ষিণ ইউনিয়নের চরমুঘুয়া গ্রামের জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী আনোয়ারা বেগমকে গ্রেপ্তার করেন। কিন্তু যে নারীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে, তিনি মূল আসামি ছিলেন না। নিজের ও স্বামীর নামের মিল থাকায় চরমুঘুয়া গ্রামের আনোয়ারা বেগমকে গ্রেপ্তার করেন এএসআই মাজেদ।

এ ঘটনার পর বেলাল হোসেন বিষয়টি ফরিদগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুর রকিবকে জানান। বিষয়টি আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করেন ওসি। এদিকে গ্রেপ্তার আনোয়ারাকে গতকাল শুক্রবার চাঁদপুর আদালতে তোলা হলে জামিন নামঞ্জুর পূর্বক হাজতে পাঠান আদালত।

আজ শনিবার গ্রেপ্তার আনোয়ারা বেগম সাজাপ্রাপ্ত আসামি নন প্রমাণ দিয়ে চাঁদপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট-২ কামাল হোসেনের আদালতে একটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন ওসি আবদুর রকিব। এ সময় ভুলক্রমে গ্রেপ্তার আনোয়ারা বেগমকে দ্রুত মুক্তি দানের আদেশ প্রদান করেন আদালত।

বেলাল হোসেন আরও জানান, পুলিশ নাম ও ঠিকানা নিশ্চিত না হয়ে তার বোনকে সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে আটক করে। ফলে কোনো অপরাধ না করেও তাকে ২৪ ঘণ্টা কারাভোগ করতে হয়েছে।

এ বিষয়ে আনোয়ারা বেগমের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইয়াছিন আরাফাত চৌধুরী জানান, শনিবার আদালত আনোয়ারা বেগম মুন্সীগঞ্জ জেলার (জি আর ১৪০/২০০০) ওই মামলার আসামি নয় বলে পুলিশের রির্পোট পেয়ে তাকে দ্রুত মুক্তি দানের আদেশ প্রদান করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ওসি আবদুর রকিব জানান, এএসআই মাজেদকে ইতিমধ্যেই সিসি দেয়া হয়েছে। এই আনোয়ারা বেগম আসামি আনোয়ারা বেগম নন এই সংক্রান্ত একটি রির্পোটও আদালতে পাঠানো হয়েছে।

আমাদের সময়

Leave a Reply