মুন্সীগঞ্জে রেকর্ড সংখ্যক নারী-পুরুষ চাকরি পেলেন পুলিশে

কোনো ধরণের ঘুষ বা অনৈতিক সুবিধা ছাড়াই পুলিশে নিয়োগের যে ঘোষণা দেয়া হয়েছিল তার বাস্তবায়ন করলেন মুন্সীগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম (বার)। সম্পূর্ণ মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে মুন্সীগঞ্জ জেলায় এবছর পুলিশ কনস্টেবল পদে ২২৬ জনকে চাকুরী দিয়ে দৃষ্টান্ত দেখালেন তিনি। মুন্সীগঞ্জের ইতিহাসে এই প্রথম সর্বোচ্চ পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকুরী পেয়েছে স্থানীয় নারী-পুরুষ।

আজ দেশের বিভিন্ন জেলায় ১০৩ টাকায় পুলিশের চাকরি হচ্ছে বলে যে খবর পাওয়া যায় তার শুরুটা করেছেন মুন্সীগঞ্জ জেলার বর্তমান পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম (বার)।

তিনি মুন্সীগঞ্জ জেলাতে ২০১৬ সালে যোগদানের পর থেকেই এই ঘোষণা দেন এবং যার দৃষ্টান্ত ২০১৭ সালের ৮৩ জন ও ২০১৮ সালের ৮৫ জন এবং এবছর ২২৬ জনের পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি। তিনিই প্রথম ২০১৭ সালে মুন্সীগঞ্জের পুলিশের মধ্যে ডোপ টেস্ট চালু করেছে।

গত ২৪ জুন নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়ে বিভিন্ন ধাপে শতভাগ স্বচ্ছতার সঙ্গে যাচাই-বাছাই করে ২৯ জুন যোগ্য এবং মেধাবী প্রার্থীদের নির্বাচিত করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম (বার)।

তিনি আরো জানান, নির্বাচিত ২২৬ জনের মধ্যে সাধারণ পুরুষ ১৭১ জন, সাধারণ নারী ৪২ জন, পুরুষ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ১০ জন, পুলিশ পোষ্য পুরুষ ২ জন, আনসার সদস্যের সন্তান ১ জন। এবার চূড়ান্ত পর্যায়ে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তাদের বেশিরভাগই হতদরিদ্র, দিনমজুর, চা বিক্রেতার সন্তান।

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মোস্তাফিজুর রহমান, ডিআই-১ প্রাণবন্ধুসহ সদ্য নিয়োগ প্রাপ্তদের অভিভাবক ও সাংবাদিকবৃন্দ।

অবজারভার

Leave a Reply