পদ্মাসেতুর রেললাইনের জন্য দুইপাড়ে নির্মাণ কাজ শুরু

৪০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মাসেতু রেললাইনের জন্য দুইপাড়ে শুরু হয়েছে নির্মাণ কাজ। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশা, পদ্মাসেতু চালুর সঙ্গে সঙ্গে রেললাইন চালু করা সম্ভব হবে। এটি চালু হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার জনগোষ্ঠী ও দেশের সামগ্রিক আর্থসামাজিক উন্নয়নে বড় ধরণের অবদান রাখবে বলে মনে করছে জেলা প্রশাসন।

পদ্মাসেতুর জাজিরা ও মাওয়া প্রান্তের দুইপাড়ে পুরোদমে শুরু হয়েছে রেললাইন নির্মাণ কাজ। ইতোমধ্যে জমি অধিগ্রহণ শেষে মাটি ভরাটের কাজ চলছে। পাশাপাশি পুরো রেললাইন নির্মাণ করতে এতে যুক্ত করা হয়েছে আধুনিক সব যন্ত্রপাতি। ঢাকা বিভাগের ৬ জেলায় বিদ্যমান স্টেশন ছাড়াও কেরানীগঞ্জ, নিমতলা, শ্রীনগর, মাওয়া, জাজিরা ও শিবচরেও যাত্রীদের সুবিধার্থে নতুন ৬টি রেলস্টেশন স্থাপন করা হবে। ঢাকা সিটি কর্পোরেশন, মুন্সীগঞ্জ, শরিয়তপুর, মাদারীপুর, ফরিদপুরের ৮৭টি মৌজার ওপর দিয়ে নির্মিত এই রেলপথটি সরাসরি চলে যাবে পটুয়াখালীর পায়রা সমুদ্র বন্দরে। এতে খুশি দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষ।

কাজের সাথে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পদ্মাসেতু চালুর সঙ্গে সঙ্গে রেললাইন চালু করতে দিনরাত কাজ করছেন শ্রমিকরা।

সাইড-ইঞ্জিনিয়ার মো. নাজমুল হাসান বলেন, পদ্মা সেতু শেষ হবার সাথে সাথেই রেলওয়ের কাজও শেষ হয়ে যাবে। ইনশাল্লাহ আমরা মনে করি খুব দ্রুত দক্ষিণের মানুষ এই সুবিধা পাবে।

রেললাইন নির্মাণ হলে রাজধানীর সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যাতায়াত ও ব্যবসা-বাণিজ্যের সুবিধা বর্তমানের চেয়ে কয়েকগুণ বাড়বে বলে মনে করছে জেলা প্রশাসন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ নুর হোসেন সজল বলেন, যতভাবে সরকারকে এই বিষয়ে সহযোগিতা করা যায় আমরা করেছি।

এই প্রকল্পটিতে ২শ’ ১৫ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণ, ২৩ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট, ৬৬টি মেজর ব্রিজ, ২শ’ ৪৪টি মাইনর ব্রিজ ও কালভার্ট, একটি হাইওয়ে ওভারপাস, ২৯টি লেভেল ক্রসিং, ৪০টি আন্ডারপাস, ১শ’ টি ব্রডগেজ যাত্রীবাহী গাড়ি সংগ্রহসহ থাকছে আনুধিক নানা সুবিধা।

সময়নিউজ.টিভি

Leave a Reply