মোল্লাকান্দিতে সন্ধ্যা নামলেই ককটেল বিস্ম্ফোরণের শব্দ

কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু: মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চল মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিবদমান দু’পক্ষের বিরোধে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন ও এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দুই নেতার বিরোধ ছড়িয়ে পড়েছে ইউনিয়নজুড়ে। হামলা-পাল্টা হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনার পর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা, ইউপি চেয়ারম্যান ও সাবেক চেয়ারম্যানরা ঢাকা ও মুন্সীগঞ্জ শহরে বসে বিচ্ছিন্ন সভা করেছে। এতে পরিস্থিতি ক্রমান্বয়ে আরও জটিল আকার ধারণ করছে বলে তৃণমূল আওয়ামী লীগ ও স্থানীয় গ্রামবাসী জানিয়েছে।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগের বিবদমান দু’পক্ষের নেতাকর্মীরা একে অপরকে ঘায়েল করতে সহযোগী রাখছে বিএনপির নেতাকর্মীদের। এ সুযোগে বিএনপির নেতাকর্মীরা সৃষ্ট বিরোধকে আরও ঘোলাটে করতে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের নেতাদের নানা কৌশলে উত্তেজিত করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা চালাচ্ছে বলে স্থানীয় অনেকে মনে করছেন।

গত ২৯ জুন ড্রেজার ব্যবসা নিয়ে সংঘর্ষের পর দু’পক্ষের মধ্যে কয়েক দফা হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাহার মোল্লা, ইউপি সদস্য মেবজাহউদ্দিন ও বিএনপি নেতা উজির আলীসহ ৬৯ জনকে আসামি করে সদর থানায় চাঁদাবাজি ও বিস্টেম্ফারক দ্রব্য আইনে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে। এ মামলায় গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত এজাহারভুক্ত কোনো আসামি গ্রেফতার হননি।

গ্রামবাসী জানায়, মামলা রুজুর পর থেকে গ্রেফতার এড়াতে বিবদমান দু’পক্ষের কর্মী-সমর্থকরা দিনে গ্রাম থেকে নিরাপদ দূরত্বে গিয়ে থাকলেও সন্ধ্যার পরই গ্রামে ফিরে এসেই নিজ নিজ এলাকায় একাধিক ককটেল বিস্টেম্ফারণ ঘটাচ্ছে। এ কারণে আবারও সংঘর্ষের আশঙ্কায় আতঙ্কে রাত কাটছে ইউনিয়নের ৭টি গ্রামের নারী-পুরুষের।

গ্রামবাসী জানিয়েছে, আধিপত্য ও ড্রেজার ব্যবসার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে বেহেরকান্দি ও মুন্সীকান্দি গ্রামে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দুই নেতা সাধারণ সম্পাদক আজাহার মোল্লা ও সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন দেওয়ানের মধ্যে বিরোধে হামলা-পাল্টা হামলা, সংঘর্ষ ও বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। দুই নেতাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী। আজাহার মোল্লা ৭ বছর ধরে পদে থাকলেও এবারও কমিটিতে থাকার লক্ষ্য নিয়ে লবিং করছেন।

অপরদিকে সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন দেওয়ান এবার সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে মরিয়া। এসব নিয়েই হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটছে। এ অবস্থায় আওয়ামী লীগ নেতা আজাহার মোল্লা বেহেরকান্দি গ্রামের বিএনপি নেতা উজির আলী ও তার কর্মী-সমর্থককে তার পক্ষে যুক্ত করেছে। স্বপন দেওয়ানও বহিরাগতদের নিয়ে নিজেকে শক্তিশালী করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

স্থানীয় লোকজন জানায়, প্রতিদিন সন্ধ্যা হলেই মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের নোয়াদ্দা, ঢালীকান্দি, লক্ষ্মীদিবি, বেহেরকান্দি ও মুন্সীকান্দিসহ ৭টি গ্রামে বিকট শব্দে একের পর এক ককটেল বিস্টেম্ফারণ ঘটাচ্ছে। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাহার মোল্লা জানান, বেহেরকান্দি গ্রামের উজির আলী ও মেজবাহউদ্দিন ঢালী পক্ষের সঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতা স্বপন দেওয়ান পক্ষের সংঘর্ষ হয়। এলাকায় সংঘর্ষ বেধে গেলে উভয়পক্ষই ককটেল বিস্ম্ফোরণ ঘটায়, এ ধারা দীর্ঘদিনের।

বিএনপি নেতা উজির আলী বলেন, ড্রেজার ব্যবসার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আজাহার মোল্লা গং ও একই কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন দেওয়ান গংয়ের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। ইউপি নির্বাচনে এক প্রার্থীকে টাকা দিয়ে সহযোগিতা করায় তা অপরাধ হয়েছে। এ জন্য মামলার আসামি হয়েছি।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন দেওয়ান বলেন, চাঁদা না দেওয়ায় আজাহার মোল্লা বিএনপির লোকজন নিয়ে আমার বাড়িতে হামলা চালায়। এ ঘটনায় মামলা করলেও পুলিশ এজাহারভুক্ত কোনো আসামি গ্রেফতার করেনি। কমিটি গঠন নিয়ে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

সদর থানার ওসি (তদন্ত) গাজী সালাউদ্দিন জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় দুটি মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।

সমকাল

Leave a Reply