নারী-শিশু নির্যাতন দমন আইন কঠোর করতে পদক্ষেপ নেয়া হবে

দায়িত্ব গ্রহণ করে বললেন প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা
প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করে নারী-শিশু নির্যাতন দমন আইন আরও কঠোর করতে পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানালেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক নতুন প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা। একই সঙ্গে তিনি বলেন, আমরা যদি সবাই মিলে সংঘবদ্ধ হয়ে কাজ করতে পারি তাহলে অবশ্যই নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ করতে পারব। ইন্দিরা মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে রবিবার সকালে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। মন্ত্রণালয়ে তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান সচিব কামরুন নাহার। এর পর মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দফতর ও সংস্থার প্রতিনিধিরা প্রতিমন্ত্রীকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। প্রতিমন্ত্রী উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। নারী ও শিশু নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনা বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে কী ভূমিকা রাখবেন, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে প্রতিমন্ত্রী বলেন- সবার সঙ্গে একত্রে সংঘবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। সামাজিক ও সংস্কৃতি কর্মী যারা আছেন, যেসব সংগঠন আছে, আমরা সবাই মিলে যদি সচেতনতা গড়ে তুলতে পারি তবে নারী-শিশু নির্যাতনসহ সবকিছু প্রতিরোধ করতে পারব। এর আগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন আরও কঠোর করার কথা প্রধানমন্ত্রী সংসদে বলেছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আইনটি অবশ্যই কঠোর করার জন্য তা সংসদে নিয়ে আসা হবে। আইনটি সংশোধনের জন্য মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় একক প্রস্তাব পাঠাবে না। এখানে আইন মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য মন্ত্রণালয় মিলেই আইনটি করা হবে। কীভাবে-কতটুকু কি করা হবে তা আপনারা জানতে পারবেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার নারীবান্ধব। এ দেশের নারীর উন্নয়ন, ক্ষমতায়ন, সমঅধিকার এবং সমমর্যাদা প্রতিষ্ঠায় সরকারের বলিষ্ঠ কার্যক্রম সারা বিশ্বে প্রশংসিত। নির্বাচনী ইশতেহারে জাতীয় জীবনের সর্বস্তরে মহিলাদের অংশগ্রহণ ও জনজীবনের সর্বস্তরে নারী-পুরুষের সমঅধিকার প্রতিষ্ঠায় সরকার নারীবান্ধব বাজেট প্রণয়ন করছে। নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে যে আইন আছে প্রয়োজনে আরও কঠোর করা হবে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। এ বিষয়ে মিডিয়া কর্মীদেরও বড় ভূমিকা রয়েছে। সবাই মিলে সচেতনতা গড়ে তুলতে পারলে এটা সমাজ থেকে নির্মূল করা সম্ভব।

প্রতিমন্ত্রী হওয়ার প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, ’৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যার পর আমার জেলা মুন্সীগঞ্জে স্বাধীনতার নেতৃত্বদানকারী দলের সরকারে কোন মন্ত্রী ছিল না। এবারই প্রথম আমাদের মুন্সীগঞ্জ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিমন্ত্রী হিসেবে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব আমাকে দিয়েছেন। সেজন্য আমরা মুন্সীগঞ্জবাসী খুবই আনন্দিত। এত বছর পর জেলা থেকে এই প্রথম একজনকে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়ায় জনগণের সঙ্গে আমিও আনন্দিত।

প্রতিমন্ত্রী এরপর মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীর সঙ্গে মতবিনিময় করেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, নারীর উন্নয়ন মানেই বাংলাদেশের উন্নয়ন। এজন্য সকলকে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে। নারীর এই উন্নয়নে তিনি মন্ত্রণালয়ের সকলের সহযোগিতা চান। মতবিনিময় সভায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুন নাহার, জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান অধ্যাপক মমতাজ বেগম, মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের মহাপরিচালক বদরুন নেছা, বাংলাদেশ শিশু একাডেমির পরিচালক আনজীর লিটনসহ মন্ত্রণালয় এবং এর আওতাধীন দফতর ও সংস্থার বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন। শনিবার প্রতিমন্ত্রী সেবে শপথ নেন ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা।

জনকন্ঠ

Leave a Reply