লৌহজংয়ের ধর্ষিতা সেই শিশুর দায়িত্ব নিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় যশলদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির ধর্ষিতা শিশুর বাড়িতে পরিদর্শনে গিয়ে নিজের বোনের স্বীকৃতি দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খাঁন। নির্যাতিত মেয়েটির সকল দায় দায়িত্বও গ্রহণ করেন তিনি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ধর্ষিতা শিশু পরিবারের সাথে দেখ করতে গেলে সেখানে শত শত নারী পুরুষ উপস্থিত হয়। এ সময় তার সাথে ছিলেন, লৌহজং উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল কাদের মিয়া, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রীনা আক্তার, ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হাজী আশরাফ হোসেন খান, ১নং ওয়ার্ড মেম্বার হারুন অর রশিদ প্রমুখ।

এ ব্যাপারে রোববার লৌহজং উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খাঁন বলেন,‘আমরা অভিযোগ পাওয়া পর ওই প্রধান শিক্ষককে ডেকেছিলাম। শিক্ষিকার মৌখিক ব্যাখ্যা সন্তোষজনক নয়। আমরা তাকে শোকজ করেছি। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিষয়টা প্রক্রিয়াধীন আছে।’ ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো: হারুন অর রশিদকেও শোকজ করা হয়েছে। অপরদিকে আমি মেয়েটিকে আমার বোন হিসেবে গ্রহণ করে তার সকল দায় দায়িত্ব গ্রহণ করেছি।

উল্লেখ্য যে, গত ১২ জুলাই মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং উপজেলায় ৫ম শ্রেণির ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করার অপরাধে ৫৫ বছর বয়সের আলাউদ্দিন হাওলাদারকে গ্রেফতার করে লৌহজং থানা পুলিশ। ধর্ষণের আলামত নষ্ট করার অপরাধে খলিলুর রহমান (৪৫) নামে আরো একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

লৌহজং থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসাইন জানান, ১৮ দিন আগে আলাউদ্দিন হাওলাদার (৫৫) যশলদিয়া এলাকার পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে কৌশলে ধর্ষণ করে। এই খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। বিচারের নামে খলিলুর রহমান (৪৫) নামের এক লোক বিচারের নামে কালক্ষেপন করে ধর্ষণের আলামত নষ্ট করে ফেলে।

বিষয়টি এলাকায় ভাইরাল হয়ে পড়েছে এমন খবর পেয়ে এলাকায় অভিযান চালিয়ে ধর্ষক ও আলামত নষ্টকারীকে গ্রেফতার করে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও ধর্ষণের আলামত নষ্ট করার অপরাধে মামলা করা হয়েছে।

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply