শ্রীনগরে এনজিও কর্মীদের হুমকিতে গৃহবধূর আত্মহত্যা

মুন্সীগঞ্জ শ্রীনগর উপজেলায় আর্থিক সংকটে কিস্তি পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে এনজিও কর্মীদের হুমকিতে এক গৃহবধূর আত্নহত্যা করেছে। এই ব্যাপারে স্থানীয় লোকজনদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। একাধিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলেও প্রশাসন এই ব্যাপারে কোন দৃষ্টি দিচ্ছে না।

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, ব্রাক, আশা, পদক্ষেপ, সাজেদা ফাউডেশন, শ্রীদ্বীপ, ইশি বাংলা ও ব্ররো বাংলা এনজিও প্রতিষ্ঠানগুলো গ্রামে-গঞ্জে অসহায় গরীব নারীদেরকে সাপ্তাহিক ও মাসিক কিস্তিতে ঋণ দেয়। এনজিও প্রতিষ্ঠানগুলো ঋণ দেওয়ার সময় বিধিমতে তাদের নিজস্ব কাগজে স্বাক্ষর নেওয়ার পরও আলাদা করে আর্থিক সংকটে থাকা ঋণ গ্রহিতাদের অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে এনজিও প্রতিষ্ঠানগুলো আলাদা করে গ্রহিতাদের নন জুডিয়াল স্ট্যাম্প এবং ব্লাং ব্যাংক চেকে স্বাক্ষর নেয়।

এমনকি কোন ঋণ গ্রহিতার ব্যাংক একাউন্টের চেক বহি না থাকলে যার ব্যাংকে একাউন্ট আছে এমন কারো ব্লাং চেক দিয়ে ঋণ উত্তোলন করতে হয়। ঋণ নেয়ার পর ঋণ গ্রহিতা আর্থিক সংকটের কারণে সাপ্তাহিক বা মাসিক কিস্তি কোন একটা কিস্তি পরিশোধে ব্যর্থ হলে কিস্তি না পাওয়া পর্যন্ত গ্রহিতাদের বাড়ীতে অবস্থান করে এনজিও কর্মীরা। নিরবধি ঋণ গ্রহিতাদেরকে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে এমনকি রাতেও চলে এনজিও কর্মীরা ঋণ গ্রহিতাদের বাড়ীতে।

না পেয়ে পুনরায় পরের দিন খুব ভোরের ঘুম হইতে উঠার পূর্বেই গ্রহিতার বাড়ীতে উপস্থিত হয়। এ অবস্থায় করেও কোন ঋণ গ্রহিতাকে বাড়ীতে না পেলে তারা গ্রহিতার পিত্রালয়ের ঠিাকানায় চলে যায়। সেখানে গিয়েও গ্রহিতাদের না পেলে গ্রহিতার নিকট থেকে নেওয়া স্বাক্ষরিত স্ট্যাম্প এবং ব্লাং চেক দিয়ে মামলা করে কিস্তি আদায় করবে বলে হুমকি প্রদান করে বলে জানায় স্থানীয়রা।

এমনটাই ঘটেছে বলে জানা যায় শ্রীনগর উপজেলা কুকুটিয়া ইউনিয়নের পাঁচলদিয়া গ্রামে। প্রতিবেশীদের দেখে আর্থিক অস্বচ্ছলতা গুছানোর বুক ভরা আশা নিয়ে কয়েকটি এনজিও প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ উত্তোলন করে, স্বামী আবু কালামকে বিদেশ(দুবাই) পাঠায় গৃহবধূ পাখি আক্তার। কিন্ত আশা তার আর পূরণ হল না।

কয়েক মাস পরেই কাজ না পেয়ে বিদেশ থেকে চলে আসতে হয় একমাত্র উপার্জনক্ষম স্বামী আবু কালামকে। স্বামী বিদেশ থেকে বাড়ীতে এসে পড়ায় তাদের আর্থিক অস্বচ্ছলতা আরো বেড়ে যায়। আর্থিক সংকটের কারণে এনজিও প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে আনা কিস্তি সময়মত পরিশোধ করতে ব্যর্থ হয়।

সময়মত কিস্তি না দিতে পারায় এনজিও কর্মীরা বিভিন্ন সময়ে গৃহবধূ পাখির বাড়ীতে এসে কিস্তি পরিশোধে চাপ প্রয়োগ করে। এমনকি তাকে দিনে বাড়ীতে না পেয়ে, তাকে না পাওয়া পর্যন্ত রাত ১০/১১টা পর্যন্ত বাড়ীর উঠানে অবস্থান করে এনজিও কর্মীরা। এমনকি পরদিন ভোরে কেউ ঘুম থেকে উঠার পূর্বেই গ্রহিতার কিস্তি নেওয়ার জন্য বাড়ীতে চলে আসে এনজিও কর্মীরা। গৃহবধুকে না পেয়ে তার পিত্রালয়ে চলে যায়। কিস্তি পরিশোধ না করলে মামলা দিয়ে কিস্তির টাকা আদায় করবে বলে হুমকি প্রর্দশন করে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পাঁচলদিয়া গ্রামের আবু কালামের স্ত্রী পাখি আক্তার(২৯) এনজিও কর্মীদের হুমকিতে কোন উপায় অন্ত না পেয়ে গত ২১ জুলাই রোববার সকালে ইদুর নিধনের ট্যাবলেট খেয়ে আত্মহত্যা করে। এ ব্যাপারে এনজিও প্রতিষ্ঠনগুলোর কর্মরত ম্যানেজারদের সাথে কথা বললে তারা বিষয়টি অস্বীকার করেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার মাহফুজা পারভীন চেীধুরী নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, এনজিও প্রতিষ্ঠানগুলো এক উপজেলার এনজিও প্রতিষ্ঠান অন্য উপজেলা কাজ করার অনুমতি নাই। তারা গ্রাহকের সাথে এহেন আচরণ করার বিধানও নেই। আমি এ ব্যাপারের নির্বাহী অফিসারের সাথে আলোচনা করে ব্যবস্থা নিব।

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply