মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরাকে গণসংবর্ধনা

মুন্সীগঞ্জের কৃতিনারী ফজিলাতুননেসা ইন্দিরা মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী হওয়ায় তাকে গণসংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে মিরকাদিম পৌরবাসীর পক্ষ থেকে এই গণসংবর্ধনা দেয়া হয়। মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহিদুল ইসলাম শাহীন এই নাগরিক সংবর্ধনার আয়োজন করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মহিউদ্দিন।

মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র শহিদুল ইসলাম শাহীনের সভাপতিত্বে এ সময় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আনিছ-উজ্জামান আনিছ, সাধারণ সম্পাদক শেখ লুৎফর রহমানসহ অন্যান্যরা।

সভায় বক্তারা এলাকার উন্নয়ন এবং গত উপজেলা নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করায় স্থানীয় সংসদ সদস্য মৃণাল কান্তি দাস মেয়র ও দলীয় নেতাকর্মীদের উপর ক্ষুব্ধ হয়ে তাদের উপর হামলা-মামলা করার নালিশ জানান মন্ত্রীর কাছে।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুননেসা ইন্দিরা জানান, আমি এই অঞ্চলের মেয়ে। জেলার সমস্যার কথা আমার জানা। তবে, বাংলাদেশের পরিবেশ যেমন বদলে গেছে। তেমনি মুন্সীগঞ্জের পরিবেশও বদলে যাবে। মুন্সীগঞ্জ হবে উন্নয়নমূলক জেলা। মুন্সীগঞ্জের বাসীর সবচেয়ে বড় দাবি, মুন্সীগঞ্জ জেলা সদরের সাথে ঢাকার যোগাযোগের মুক্তারপুর থেকে নারায়ণগঞ্জের পঞ্চবটি পর্যন্ত দুরাবস্থার রাস্তাটি হবেই হবে।

এরআআগে সকালে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, পুলিশ কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভা করেন। জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার এই সভার সভাপতিত্ব করেন।

উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধুর শাসনামলে ১৯৭৩ সালে মরহুম এম কোরবান আলী তথ্য ও বেতারমন্ত্রী ছিলেন। এরপর ১৯৯৬ থেকে ২০১৯ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা শাসনামলের চতুর্থ মেয়াদে প্রথমবারের মতো ফজিলাতুননেসা ইন্দিরাকে মুন্সীগঞ্জ জেলা থেকে প্রথম প্রতিমন্ত্রী দেয়া হলো। বিএনপি ও জাতীয় পার্টির শাসনমলের পর প্রায় একযুগ পর মুন্সীগঞ্জে প্রতিমন্ত্রী পেলেন ফজিলাতুননেসা ইন্দিরা। এরআগে বিএনপির শাসনামলে পরপর দুইজন রাষ্ট্রপতি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, তথ্যমন্ত্রী, ভূমিমন্ত্রী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রীসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন মুন্সীগঞ্জের সংসদ সদস্যরা। জাতীয় পার্টির আমলে শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ছিলেন উপ-প্রধানমন্ত্রী। এতোকিছুর পরও মুন্সীগঞ্জ জেলার সার্বিক উন্নয়ন তেমন হয়নি।

অবজারভার

Leave a Reply