শিমুলিয়ায় স্বস্তিতে ফিরছে ঈদে ঘরমুখো মানুষ

নাড়ির টানে ঈদের শেষমুহুর্তে দক্ষিণাঞ্চলের ২৩ জেলার মানুষের প্রবেশদ্বার শিমুলিয়ার নৌপথ দিয়ে ঘরমুখো মানুষ ছুটছেন। পাশাপাশি দক্ষিণাঞ্চলের কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাট দিয়ে ঢাকামুখি হচ্ছে আসছে গরুবাহি ট্রাক। ভোরে শিমুলিয়াপ্রান্তে গাড়ির চাপ থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তা কমে আসছে। ঘাটে দুই শতাধিক ট্রাক, যাত্রীবাহি বাস ও ছোট ছোট যানবাহন মিলে প্রায় ৫ শতাধিক যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে।

এদিকে, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি এ নৌরুটে বর্তমানে ১৭টি ফেরি, সাড়ে ৪ শতাধিক স্পিডবোট ও ৮৮টি লঞ্চ দিয়ে পারাপার হচ্ছে ঈদে ঘরমুখো মানুষ।

মলমপাটি, ছিনতাইসহ আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে শিমুলিয়াঘাটে পুলিশ, আনসার, র‌্যাবসহ প্রায় ৪ শতাধিক নিরাপত্তাকর্মী মোতায়েন করা হয়েছে। ঘাট এলাকায় মোবাইল কোর্টের জন্য সার্বক্ষণিক ম্যাজিষ্ট্রেট রয়েছেন।

বিআইডব্লিউটিএ’র মাওয়া সহকারি পরিচালক শাহাদাত হোসেন জানান, গত কয়েকদিন বৈরী আবহাওয়ার কারণে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় গতকাল থেকে যাত্রীদের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। ৮৮টি লঞ্চে যাত্রী পারাপার করা হচ্ছে। ভাড়া ও যাত্রী বেশি নেওয়ার কোন অভিযোগ নেই।

বিআইডব্লিউটিসির এজিএম (মেরিন) একেএম শাহজাহান জানান, ড্রেজিং পয়েন্টের চ্যানেল সরু এবং ড্রেজিং কাজ চলায় রাতে ৪-৬টি ডাম্ব ফেরি (টানা ফেরি) বন্ধ রাখতে হয়। এই কারণে সকাল পর্যন্ত গাড়ির চাপ কিছুটা থাকে। এরপর বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানবাহনের চাপ কমে যায়। দিনের বেলায় শিমুলিয়াঘাটে ট্রাক পারাপার বন্ধ রাখা হয়। তবে, গরুবাহি ও পচনশীল কিছু ট্রাক পারাপার করা হয়ে থাকে।

সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (সিরাজদিখান সার্কেল) মো. রাজিবুল ইসলাম জানান, ঘাটে সকালে যাত্রী চাপ ছিল। তবে এখন কমতে শুরু করেছে। ফেরিঘাট, লঞ্চঘাট ও স্পীডবোট ঘাটে আমাদের পর্যাপ্ত আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য রয়েছেন। বাসে ভাড়া বেশি নেওয়াসহ কোন প্রকার অনিয়মের অভিযোগ আমাদের কাছে আসেনি। কোন প্রকার অনিয়মের অভিযোগ পেলেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অবজারভার

Leave a Reply