শ্রীনগরে সাবেক স্ত্রীর ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সাবেক স্বামীর সংবাদ সম্মেলন

শ্রীনগর উপজেলার বালাশুর এলাকার বিউটিশিয়ান শাহিদা বেগম ওরফে আমবিয়া’র ষরযন্ত্রের স্বীকার সাবেক স্বামী সংবাদ সম্মেলন করেছেন। রোববার বিকালে শ্রীনগর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে শাহিদার সাবেক স্বামী মো. বিল্লাল হোসেন তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষরযন্ত্র ও হয়রানিমূলক অভিযোগ উল্লেখ করে এ সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে মো. বিল্লাল হোসেন তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, উপজেলার উত্তর কামাগাঁও গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে তিনি। একই উপজেলার সাবেক স্ত্রী শাহিদা বেগম ওরফে আমবিয়া’র এক তরফা তালাকের মাধ্যমে ২০-২২ বছরে সংসার জীবনের ইতি ঘটে। ওই সংসারে শুভ নামে এক ছেলে সন্তান রয়েছে। ছেলে এখন শাহিদার হেফাজতে আছে।

বিগত সময়েও শাহিদার বেপরোয়া চলাফেরা সাংসারিক কলহের কারণে সংসারে অশান্তি নেমে এসেছিলো। ছাড়াছাড়ি হওয়ার পরেও সে বিভিন্ন সময়ে আমার বিরুদ্ধে ষরযন্ত্র করছে। তার সন্ত্রাসী ভাই আক্তার ও মোক্তারকে দিয়ে আমাকে ভয়ভীতি দেখানোসহ মেরে ফেলার যরযন্ত্র চালাচ্ছে। আমি এখন আতংঙ্কে দিন যাপন করছি। উপায় না পেয়ে শ্রীনগর থানায় একাধিক অভিযোগ ও সাধারণ ডায়রী করতে বাধ্য হয়েছি।

গত এপ্রিল মাসে আমার ক্ষেতের মারাইকৃত ৬০ মন বস্তাবন্দী ধান লুট করে নিয়ে যায় শাহিদার ভাই ও তার লোকজনরা। এ ঘটনায় শাহিদার ভাই মুক্তার হোসেন, আক্তার হোসেন সহ ইলিয়াছ, সিরাজুল, সবুজ, শাহিনকে আসামি করে শ্রীনগর থানায় বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেও কোন লাভ হয়নি।

তিনি আরো বলেন, এরপর গত ৩ আগস্ট ছেলে শুভুর খোঁজখবর নিতে বাড়িতে গেলে শাহিদা আমাকে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করে ও ক্ষিপ্ত হয়ে বাঁশের লাঠি দিয়ে মারধর করতে এসে নিজেই পরে গিয়ে হাতে আঘাত প্রাপ্ত হয়। এ বিষয়ে থানায় আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে। ঘটনাস্থলে শাহিদার বাড়ির মালিক মনোয়ারা বেগমসহ অনেকেই ঘটনা দেখেছেন। এ ঘটনায় শাহিদার ভাড়াকৃত বাসায় পুলিশ আশার বিষয়ে শাহিদার কাছে বাড়ির মালিক মনোয়ারা জানতে চাইলে শাহিদা তাকে চর-থাপ্পর দেয়।

বালাশুর চৌরাস্তায় অনামিকা বিউটি পার্লারের বিউটিসিয়ান শাহিদা বেগম সাংসারিক জীবনে একই উপজেলার কাঁঠাল বাড়ির আগের স্বামী আ. রহিমের দুই ছেলে জনি হত্যা মামলার আসামি (বর্তমানে জেলে) অপর জন রনি ডাকাতি মামলার আসামি। শ্রীনগর থানায় অপরাধিদের ছবির তালিকায় শাহিদার ছেলে রনি’র ছবিও রয়েছে। রনিকে দিয়েও পূর্বে আমাকে শাহিদা ভয়ভীতি দেখাত। এছাড়াও শাহিদা আমার বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের ভুল তথ্য দিয়ে ’বিয়ে পাগল বিল্লাল হোসেন’ শিরোনামে পত্রিকায় ভিক্তিহীন মিথ্যা তথ্য দিয়ে ২৫টি বিয়ে করেছি এমন বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করিয়েছে। আমার সাথে ছাড়াছাড়ি হওয়ার আগেও সিংপাড়ার রিপন নামে এক ব্যক্তির সাথে অবৈধভাবে বসবাস করার অভিযোগে তন্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিচার সালিশ করেন। এছাড়াও ফোর মাডার মামলার আসামি হিসেবে শাহিদা জেল খাটেন। এর পরেও একাধিক পরপুরুষের সাথে শাহিদার সম্পর্ক গড়ে উঠে। তার নানা সমস্যার কারণেই আমার সংসার জীবনে অশান্তি নেমে আসে।

মো. বিল্লাল হোসেন আরো বলেন, শাহিদার এক তরফা তালাকের কারণে আমার কোন ক্ষোভ নেই। আমি শান্তিতে আমার আগের স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে সুখে ও শান্তিতে বসবাস করতে চাই। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে শাহিদার আসল চরিত্র ও তার ষরযন্ত্রের বিষয়গুলো উল্লেখ করার মাধ্যমে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও হয়রানিমূলক ষরযন্ত্র থেকে মুক্তি পাওয়ার লক্ষে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আর্কষন করেন তিনি। এ সময় সংবাদ সম্মেলনে তার প্রথম স্ত্রী উপস্থিত ছিলেন।

নিউজজি

Leave a Reply