বঙ্গবন্ধুর আগরতলা ষড়যন্ত্রের গোয়েন্দা রিপোর্ট নিয়ে ৩টি বই আসছে

বঙ্গবন্ধুর আগরতলা ষড়যন্ত্রের গোয়েন্দা রিপোর্ট নিয়ে প্রকাশ পাচ্ছে ৩টি বই। যে সব বই নিয়ে বহু লোকই গবেষণা করতে পারবেন। জাতি বঙ্গবন্ধুকে আরও গভীরভাবে জানতে পারবে। সদ্য পদোন্নতিপ্রাপ্ত পুলিশের অতিরিক্ত আইজি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহবুব হোসেন শুক্রবার রাতে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ লাইন্সে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনায় প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন। তিনি পুলিশের বিশেষ শাখায় দায়িত্ব পালনকারীন সময়ে এই সংক্রান্ত বিভিন্ন ঘটনার স্মৃতিচারণ করেন। তিনি “সিক্রেট ডকুমেন্ট অব ইন্টেলিজেন্স ব্রাঞ্চ অন ফাদার অব দ্য নেশন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান” ১৪ খণ্ডের বই নিয়েও আলোচনা করেন। এতে ১৯৪৭ সাল থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে পাকিস্থানের গোয়েন্দা সংস্থা ইনটিলিজেন্স ব্রাঞ্চ-আইবির প্রতিবেদন স্থান পাচ্ছে। তিনি বলেন, এই রিপোর্ট থেকে বঙ্গবন্ধুর অজানা নানা তথ্য প্রকাশ পায়।

তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়নে নতুন প্রজন্মের মাঝে বঙ্গবন্ধুর প্রকৃত আদর্শ ছড়িয়ে দিতে সকলকে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালনের প্রতি গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মানুষ হতে হবে। তিনি মাদক, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাস মুক্ত সমাজ গড়ে তোলার আহ্বান জানান। তিনি আরও বলেন, মাদক হচ্ছে বিষধর সাপ। মাদকে পুরো পরিবার, সমাজ তথা দেশ ধ্বংস করে দেয়।

শরতের সন্ধ্যায় ধলেশ্বরী তীরের এই আয়োজনে নানা শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেন। উপস্থিত সকলে বুকে ধারণ করেন শোকাবহ আগস্টের একই রকমের বিশেষ কালো ব্যাজ। ‘কাঁদো বাঙালি কাঁদো’ শিরোনামে আলোচনা সভায় মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলমের সভাপিত্বে বিশেষ অতিথির আলোচনা করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) খান মো. নাজমুস শোয়েব। আরও আলোচনা করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান, অধ্যাপক প্রবীর কুমার গাঙ্গুলী, পিপি অ্যাডভোকেট আব্দুল মতিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ কাদের মোল্লা, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহিন মো. আমানুল্লাহ, মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সম্পাদক মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মতিউল ইসলাম হিরু।

জনকন্ঠ

Leave a Reply