মোল্লাকান্দিতে ব্যারিকেড ভেঙে ‘অস্ত্র-মাদক কারবারিকে’ গ্রেপ্তার করল র‌্যাব

মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলে অস্ত্র ও মাদকের এক কারবারিকে গ্রেপ্তার ঠেকাতে তার সহযোগীরা প্রায় তিন কিলোমিটার সড়কজুড়ে গাছ, সিমেন্টের খুঁটিসহ নানা কিছু ফেলে ব্যারিকেড সৃষ্টি করেও সফল হয়নি।

এই বাধা ডিঙিয়ে ইউসুফ হাসান ওরফে ইউসুফ ফকির (৪০) নামে ওই ব্যক্তিকে মঙ্গলবার রাত পৌনে ১০টার দিকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছেন র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক পুলিশ সুপার এনায়েত হোসেন মান্নান।

গ্রেপ্তারের পর গভীর রাতে শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকূলে র‌্যাব-১১ এর ক্যাম্পে ইউসুফ ফকিরকে জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে অভিযানে নেমেছে এই বাহিনী।

মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল খন্দকার আশফাকুজ্জামান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ইউসুফ ফকিরকে গ্রেপ্তারের পর রাতেই সদর থানা পুলিশের একাধিক দল ঘটনাস্থলে গেছে। মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের মহেশপুর ও আশপাশের গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সদর থানার ওসি আনিচুর রহমান জানান, ইউসুফ ফকিরের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনসহ নানা অভিযোগে অন্তত ৫টি মামলা রয়েছে।
সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের মহেশপুরে গ্রামের ইউসুফ ফকির ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা।

র‌্যাব-১১ এর অধিনায়ক এনায়েত সাংবাদিকদের বলেন, চরাঞ্চলের ‘মাদক এবং অবৈধ অস্ত্র ব্যবসায়ী’ কয়েক মামলার আসামি ইউসুফ ফকিরের মহেশপুরের বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করা হয়।

“এই সময় তাকে মাদক ও মাদক বিক্রির টাকাসহ আটক করা হয়। তবে সহযোগীরা দীর্ঘ পথজুড়ে তাকে ছাড়িয়ে নিতে নানা তাণ্ডব চালায়।

“তিন কিলোমিটার সড়কে অন্তত ২০টি পয়েন্টে গাছ কেটে রাস্তায় ফেলে, আগের কাটা গাছের গুঁড়ি ফেলে ব্যারিকেড দেয়। সিমেন্টের খুঁটিসহ নানা কিছু ফেলে রাস্তা বন্ধ করার অপচেষ্টা চালায়। জায়গায় জায়গায় পাটখড়ি ফেলে অগ্নিসংযোগ করে র‌্যাবের পথ রোধ করার চেষ্টা করে, এমনকি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়।”

“সব বাধা অতিক্রম করে ইউসুফ হাসানকে তার বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসে র‌্যাব,” জানিয়ে তিনি বলেন, “এখন তার দেওয়া তথ্য মতে অস্ত্র উদ্ধারের অভিযান চলছে।”

ইউসুফ ফকিরের কাছ থেকে ৪০৫টি ইয়াবা, ২ বোতল বিয়ার, মাদক বিক্রির ৬ লাখ ৮ হাজার ২০০ টাকা উদ্ধারের কথা জানিয়েছে র‌্যাব।

এদিকে খবর পেয়ে রাতেই সদর থানা পুলিশের একাধিক দল মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের মহেশপুর ও আশপাশ গ্রামে অবস্থান নেয়। গ্রামবাসীরা জানায়, ইউসুফকে গ্রেপ্তারের পরপরই তার সহযোগীরা একাধিক হাতবোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে। এসময় নারীদের এগিয়ে দেন ইউসুফের সহযোগীরা।

বিডিনিউজ

Leave a Reply