চার দিন বন্ধ থাকার পর চালু হলেও স্বাভাবিক হয়নি শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি রুটের ফেরি চলাচল

সরকার রাজস্ব হারিয়েছে পৌনে দুই কোটি টাকা, ড্রেজিং খাতে খরচ দুই কোটি
মাওয়া ঘুরে এসে জসীম উদ্দীন দেওয়ান : পদ্মায় নাব্য সংকট ও তীব্র স্রোতের কারণে সোমবার সকাল থেকে শুক্রবার সকাল ১০ টা পর্যন্ত শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌ রুটের ফেরি চলাচল ছিল পুরোপুরি বন্ধ। এই রুটে চলেনি কোন ফেরি, পার হতে পারেনি কোন গাড়ি। ফলে গুরুত্বপূর্ণ এই নৌ পথের দুটি ঘাট থেকে চার দিনে সরকার রাজস্ব হারিয়েছে এক কোটি ২৩ লাখ টাকার মতো।

আর শুক্রবার সকাল থেকে শনি বার সন্ধ্যা পর্যন্ত কখনো ছয়টি ফেরিতে সীমিত আকারে গাড়ি নিয়ে ফেরি চলাচল করে মোটামুটি ছোট বড় মিলিয়ে ছয়শ গাড়ি পার হওয়ায় পর, দুই দিনে ৫৩ লাখ টাকা রাজস্ব হারিয়েছে সরকার।

বিআইডব্লিউটিসির এক সমীকরনে দেখা যায়, শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌ পথে কোন রকমের প্রাকৃতিক বিড়ম্বনা বা দূর্যোগ না থাকলে অর্থাৎ পথটি স্বাভাবিক থাকলে, এই পথে প্রতিদিন ২২শ যানবাহন পার হতে পারে। পারাপার হতে আকার ভেদে প্রতিটি বাস, ট্রাক থেকে বিআইডব্লিউটিসি আদায় করে ১৮শ থেকে ১৪শ টাকা। আর ব্যাক্তিগত গাড়ি থেকে কিছুটা কম টাকা আদায় করা হয় বলে, এই সমীকরনে প্রতিটি গাড়ির গড় হিসাব ১৪শ টাকা ধরে করা হয়। এখানে বন্ধ থাকা চার দিনে পার হতে পারেনি ৮.৮০০ যানবাহন।

আর বাকি দুই দিন ছয়শ মতো গাড়ি পার হলেও তিন হাজার আটশ গাড়ি পার হতে পারেনি। ফলে এই ঘাট দুটি থেকে ছয় দিনে বিআইডব্লিউটির ফান্ডে জমা পড়েনি এক কোটি ৭৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা। এদিকে শিমুলিয়া- কাঁঠালবাড়ি নৌ পথ সচল রাখতে অর্থাৎ বছরে এই নয় কিলোমিটারের পথের পলি সড়াতে বিআইডব্লিউটিএকে ব্যায় করতে হয় প্রায় ৩৫ কোটি টাকা। যার মধ্যে ফুয়েল ও শ্রমিকের খরচই উল্লেখ যোগ্য। যে চার দিন এই নৌ পথ পুরোপুরি বন্ধ ছিলো এবং বাকি যে দুই দিন খুড়িয়ে খুড়িয়ে ফেরি চলাচল করে কোন রকমে ঘাট সচল রাখা হলো, যেখানে সরকার পৌনে দুই কোটি টাকার মতো রাজস্ব হারালো।

সেই ছয়দিনে নদীর পলি সড়িয়ে নাব্য ফিরিয়ে আনতে সরকারের কতো টাকা খরচ হলো ? জানতে চেয়েছি বিআইডব্লিউটিএ ড্রেজিং বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রৌকশলীর কাছে, প্রতি উত্তরে তিনি বলেন, এই ছয়দিনে টিএর আনুমানিক দুই কোটি টাকার মতো খরচ হয়ে গেছে। সর্বোপরি সরকার রাজস্ব হারালো পৌনে দুই কোটি টাকা এবং বাজেট বরাদ্দ থেকে দিলেন দুই কোটি টাকা। এতো কিছুর পরও পুরোপুরি সচল হচ্ছেনা ফেরি চলাচল, দূর্ভোগ কমছেনা এই রটের যাত্রী ও চালকদের। দিন ভর ঘুরে এখনো ঘাটে দেখা যায় , ১২ থেকে ১৩ দিন ধরে অপেক্ষায় থাকা পন্যবাহী যানবাহনগুলো।

Leave a Reply