মুক্তিযুদ্ধের টুকরো ইতিহাস : ১

সাহাদাত পারভেজ: মে মাসের শুরুর দিকে মুন্সিগঞ্জ শহর থেকে পদ্মা পাড়ি দিয়ে মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের স্ত্রী সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন ও তৎকালীন আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক হামিদুর রহমানের পরিবার এক বিজন সন্ধ্যায় বানারী গ্রামে আশ্রয় নেন। টঙ্গীবাড়ী উপজেলার একেবারে শেষ সীমানায় পদ্মার পাড়ে এক গহিন গ্রাম বানারী। সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন, তার তিন মেয়ে শারমিন আহমদ রিপি, সিমিন হোসেন রিমি, মাহজাবিন আহমদ মিমি, ছেলে তানজীম আহমদ সোজেল তাজ এবং অধ্যাপক হামিদুর রহমান, তার স্ত্রী হাসিনা হামিদ, মেয়ে হাকিকিয়া ইভা, ছেলে নাসরুল হামিদ বিপু, ইফতেখারুল হামিদ অপুসহ তাদের কয়েকজন নিকট আত্মীয় বেশ কয়েক দিন এই গ্রামে অবস্থান করেন। আশ্রয়দাতা সায়েদ আলী ভূঁইয়া আওয়ামী লীগের সজ্জন কর্মী ও সচ্ছল গেরস্থ। এর মধ্যে পাকিস্তানি চরেরা তাদের অবস্থান টের পেয়ে যায়।

১৪ মে সকালে সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন ও অধ্যাপক হামিদুর রহমানের পরিবারকে হত্যার উদ্দেশ্যে হানাদার বাহিনী ও রাজাকার বাহিনী যৌথভাবে বানারী গ্রামের ভূঁইয়াবাড়ি আক্রমণ করে। শিকার না পেয়ে তারা এই গ্রামের মুক্তি সংগ্রামী মোসাদ্দেক রহমান ভূঁইয়াকে নির্মমভাবে হত্যা করে। আশ্রয় দেওয়ার অপরাধে হানাদার বাহিনী সায়েদ আলী ভূঁইয়াকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে য়ায়। টঙ্গীবাড়ী থানা নির্যাতন ক্যাম্পে নিয়ে ৭২ বছর বয়সি সায়েদ আলী ভূঁইয়াকে নির্মমভাবে হত্যা করে রক্তলোভী হায়েনার দল। তার লাশও গুম করে দেওয়া হয়।

হামলা হতে পারে এমন খবর পেয়ে আগের দিন ১৩ মে সকালে সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন ও হামিদুর রহমানের পরিবার বানারী গ্রাম ছেড়ে সিরাজদিখানের রশুনিয়া গ্রামের বাবু ভজহরি দে’র বাড়িতে আশ্রয় নেন। ভজহরি দে’র বিধবা স্ত্রী রেনুকণা দে, তার ছেলে অজয় দে ও মেয়ে সবিতা দে অতিথিদের তাদের বাড়িতে আশ্রয় দেন। অতিথিদের ঘরে জায়গা দিয়ে তারা সারারাত গোয়ালঘরে পাহাড়ায় থাকেন। তারা এখানে এসে শুনতে পান আগের দিন রাতে পাশের রামসিংয়ের বাড়িতে হানাদার বাহিনী গণহত্যা চালায়। তাই ওই দিন তারা এ বাড়ি ছেড়ে চলে যান চোরমর্দন গ্রামের সিকদার বাড়িতে। সেই বাড়ির মেহের আলী সিকদার ছিল সিরাজদিখান থানা শান্তি কমিটির নেতা। ভোররাতে পাশের ঘরের ফিসফিস শব্দে সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীনের ঘুম ভেঙে যায়। সেই পাকিস্তান সমর্থক দালাল তার সাঙ্গপাঙ্গদের হিন্দু অধ্যুষিত গ্রামগুলোতে আগুন ধরানোর শলাপরামর্শ করছিল। ফলে সকাল হওয়ামাত্র তারা একটি নৌকা ভাড়া করে অনেক বাধা-বিপত্তি পেড়িয়ে অধ্যাপক হামিদুর রহমানের শ্বশুর এনামুল হক চৌধুরীর গ্রামের বাড়ি গজারিয়ার গুয়াগাছিয়া গ্রামে এসে আশ্রয় নেন। কিন্তু বাউশিয়া ও দাউদকান্দি ফেরিঘাটে পাকিস্তানি হানাদারদের ব্যস্ত আনাগোনার কারণে এই গ্রামে অবস্থান করাও বিপজ্জনক হয়ে দাঁড়ায়। ফলে তারা ঢাকায় ফিরে যেতে বাধ্য হন।

সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন ও অধ্যাপক হামিদুর রহমানের পরিবারকে আশ্রয় দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে আছে বানারী গ্রাম। এই গ্রামের সায়েদ আলী ভূঁইয়ার বাড়িটা ছিল দূর-দূরান্তের অসংখ্য শরণার্থীর আশ্রয়স্থল। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত এই বাড়ি এখন নদীর বুকে স্বপ্ন হয়ে গেছে। রাক্ষুসী নদী এই বাড়িসহ পুরো গ্রামটা খেয়ে ফেলেছে। পদ্মার বুকে এখন নতুন করে চর জেগেছে। অনেক রায়ত সেখানে গিয়ে বসতি গেড়েছে। লোকজন এই চরটার নাম দিয়েছে নতুন বানারী।

২০ অক্টোবর ২০১৯

ফেবু থেকে

Leave a Reply