লৌহজংয়ে আসামিদের ভয়ে গ্রামছাড়া নিহত আ’লীগ নেতার মেয়ে

‘টাকা, ক্ষমতা, জনবল ও আইনি সহায়তায় খুনিরা ক্ষমতাবান হলেও আমি একটি দিকে এগিয়ে আছি, তা হলো মনের শক্তিতে। এখনও মনোবল হারিয়ে যায়নি। বাবা তোমার হত্যাকারীদের শাস্তি দিতে লড়াই চালিয়ে যাব।’ শুক্রবার মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মোবারক হোসেন হত্যাকাণ্ডের সাত বছর পূর্ণ হয়েছে। আর সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকীতে মেয়ে ওয়াহিদা খান দিয়া তার বাবার উদ্দেশে এ কথাগুলো বলেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, একটি হত্যা মামলার প্রত্যক্ষ সাক্ষী হওয়ায় ২০১২ সালের ১৮ অক্টোবর রাতে লৌহজংয়ের মেদিনীমণ্ডল ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মোবারক হোসেনকে গুলি চালিয়ে হত্যা করে ঘাতকরা। এ হত্যাকাণ্ডের সাত বছর অতিবাহিত হলেও বিচার পায়নি তার পরিবার। উল্টো আসামিদের হুমকির কারণে আওয়ামী লীগ নেতার মেয়ে পৈতৃক ভিটা ছেড়ে নারায়ণগঞ্জে বসবাস করছেন। তার বৃদ্ধ মা গ্রামের বাড়িতে থাকলেও পিস্তল বাবুর আতঙ্কে ভুগছেন।

ওয়াহিদা খান দিয়া বলেন, মামলার অন্যতম আসামি বাবু ওরফে পিস্তল বাবু প্রতিনিয়ত মামলা তুলে নিতে তাকে ও তার মাকে নানাভাবে ভয়ভীতিসহ হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। পিস্তল বাবু এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। তার ভয়ে কেউ সাক্ষী দিতে সাহস পাচ্ছেন না। সাক্ষীর অভাবে হত্যা মামলাটি বর্তমানে মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন। মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নেওয়ার চেষ্টা করেও পিস্তল বাবুর অপতৎপরতার কারণে পারছি না।

গ্রামবাসী জানায়, পিস্তল বাবু কাজীর পাগলাসহ আশপাশ গ্রামে ত্রাসের রাজত্ব তৈরি করে জমি দখলসহ নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে। তার বিরুদ্ধে কথা বললে অপহরণ করে হত্যা করার হুমকি দেওয়ায় কেউই ভয়ে প্রতিবাদ করছেন না।

ওয়াহিদা খান দিয়া জানান, ২০০১ সালের ১৭ অক্টোবর মাওলানা আবদুল কাদিরকে হত্যার ঘটনার প্রত্যক্ষ সাক্ষী ছিলেন তার বাবা মোবারক হোসেন। ওই হত্যা মামলায় প্রত্যক্ষ সাক্ষী হয়ে আদালতে জবানবন্দি দেওয়ায় আসামিরা ২০১২ সালের ১৮ অক্টোবর রাতে খুব কাছ থেকে গুলি করে হত্যা করে ঘাতকরা। ঘটনার সময় কাজীরপাগলা বাজার থেকে আ’লীগ নেতা মোবারক হোসেন নিজ বাড়ি যাচ্ছিলেন। এঘটনার পরপরই লোহজং থানায় মামলা করে নিহতের পরিবার।

সমকাল

Leave a Reply