প্রসঙ্গ পদ্মার ভাঙ্গন: কেবল তীর রক্ষা বাঁধই নয়, প্রয়োজন ক্ষতিগ্রস্তদের পূণ:র্বাসনও

পদ্মারপাড় ঘুরে এসে জসীম উদ্দীন দেওয়ান : আড়াই যুগে ভেঙ্গেছে পদ্মারপাড়,এখনও ভাঙ্গছে। এ ভাঙ্গনে শুধু বসত ভিটা, ফসলী জমি, হাট-বাজার আর গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ভেঙ্গেই পদ্মা ক্ষান্ত হয়নি। ভেঙ্গেছে মানুষের ঠিকানা। যে ঠিকানা একটি মানুষের বা একটি পরিবারের সব চাইতে বড় বাঁধন। আবার এ ভাঙ্গনে নি:স্ব হয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে ভবিষৎ জীবন কিভাবে কাঁটাবে ? বাঁচবার সে ভাবনায় চলে গেছে কারো জীবন। সবর্ গ্রাসী পদ্মার ভয়াল থাবায় মুন্সীগঞ্জের টংগিবাড়ীর হাজার হাজার মানুষের মতো, বসতভাটি ও জীবিকার একমাত্র অবলম্বন ফসলের জমিটুকুই কেবল হারায়নি।

৭০ বছরের বৃদ্ধা সালমা বেগম হারিয়েছে স্বামী কাসেম হালদারকে। দিঘীরপাড় ইউনিয়নের হাইয়ারপাড় গ্রামেই ছিলো নিজেদের ৩৫ গন্ডা ফসলী জমি, আর সাত গন্ডার বাড়ি। তিন দফা ভাঙ্গনে হারিয়েছে সেসব। জমি গেছে যাক, বাড়িটাও যদি পদ্মায় গ্রাস করে নিয়ে যায়? তবেতো তারা ঠিকানা হারিয়ে ফেলবে। হারিযে ফেলবে বাপ-দাদার চিহৃ টুকু। যেখানে চির দিনের জন্য ঘুমিয়ে আছে তাদের পূর্ব পূরুষেরা। সেই ঠিকানা ছেড়ে যাবে কোথায় ? কিংবা চির তরে সেই নিশানাটুকু হারিয়ে যাবে! এসব ভাবতো আর সারা বেলা নদীরপাড় নাকি বসে থাকতো সালমা বেগমের স্বামী, কাসেম হালদার। এসব ভাবতে ভাবতে সব ভাবনার সমাপ্তি ঘটিয়ে এক দিন সকালে চির তরে চলে যায় তাঁর স্বামী। নদীরপাড় বসে থাকা সালমা বেগম নিজের জীবনের এমন গল্প বলতে যেয়ে কিছুক্ষন থমকে যায়।

সব হারিয়ে মৃত্য স্বামীর মতো এইভাবে নদীর বুকে অপকলক তাকিয়ে থাকে হাইয়ারপাড়ের সালমা বেগম।

বুকের ভিতর পদ্মার ঢেউয়ের মতো ঢেউ বহে, তবে চোখের জল শুকিয়ে গেলেও দুচোখের কোনে অশ্রু জমা হয় খানিকটা। তারপর বলে, এসব কইয়া কিঅইব? সব হারাইয়া নদীরপাড় আছি। হেইটাও ভাইঙ্গা যাইবো। কওনের আর কি আছে? আমাগো কথা হুনার মানুষটা কে ? সালমা বেগমের জীবনের গল্প শোনতে শোনতে, হাইয়ারপাড় গ্রামের নদীর পাড়ে এসে হাজির হয় বৃদ্ধ মো: আলী, খোদেজা বেগম, ফাতেমা বেগমরা। তাদের জীবনের গল্পটা প্রায় একই রকমের। পদ্মার ছোবলে সহায় সম্বলহীন তারা। অন্যের জায়গায় নদীরপাড় ঝোপটি ঘর তুলে বসত করছে জীবনের আশা ছেড়ে দিয়ে, জীবন ঝুঁকিতে। আমাদের সংবাদ পেয়ে ছুটে আসে মহিউদ্দিন, খালেক শেখ, বাসেদ শেখ, সোহেল শেখ, করিম ও রহিম হালদাদের মতো আরো অনেেেকই।

পদ্মার ভাঙ্গনে বিলীন হযে গেছে যাদের ঘর-বাড়ি ও ফসলী জমির পুরোটুকো। যাদের মধ্যে কেহ ভাড়া থাকে অন্যের বাড়ি, আবার কেহ ঘর তোলে ঠাঁই নিয়েছে রাস্তার পাশে। পদ্মার পাড় দুই দিন ঘুরে মিলে এমন অসংখ্য মানুষের গল্প। বেঁচে থাকার জন্য এসব মানুষের খুব বেশি প্রয়োজন মাথা গোজাবার একটি ঠিকানা।

এই প্রসঙ্গে মোঠু ফোনে স্থানীয় সংসদ সদস্য সাগুফতা ইয়াছমিন এমিলির কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাঁর নিজের বাড়িও তিন তিন বার ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে। তবে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সঠিক পরিসংখ্যান না থাকলেও মোটামুটি একটা তালিকা তাঁর কাছে রয়েছে। আর নদীর তীর রক্ষায়, প্রায় ছয়শ কোটি টাকার রবাদ্দ পাইপ লাইনে থাকলেও, নদী ভাঙ্গনে বাস্তভিটা হারা মানুষদের পুন:র্বাসনের ব্যাপারে কোন পরিকল্পনা আছে কিনা ? জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক মো: মনিরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ভূমিহীনদের জন্য আপাতত জমি বন্দ্যোবস্ত দেওয়ার একটা পরিকল্পনা তাদের রয়েছে।

 

Leave a Reply