গজারিয়ায় বিশেষ ক্লাসের নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায়

গজারিয়া উপজেলার অধিকাংশ মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এসএসসি ও কলিমউল্লাহ কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণের সময় বিশেষ কোচিং ক্লাসের নামে প্রতিষ্ঠান ভেদে প্রতি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে এক হাজার থেকে এক হাজার পাঁচশ’ টাকা বাধ্যতামূলক আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কলিমউল্লাহ মহাবিদ্যালয় থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী প্রতি শিক্ষার্থীর ফরম পূরণের সময় কোচিং ফি বাবদ বাধ্যতামূলক এক হাজার টাকা আদায় করা হচ্ছে। ফরম পূরণের টাকা রশিদের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীরা নির্ধারিত ব্যাংকে জমা দিলেও কোচিং ফি বা বিশেষ ক্লাসের জন্য টাকা একাডেমিক ভবনে টিচার্স রুমে বসে দুই শিক্ষককে আদায় করতে দেখা গেছে। কোচিং ফি নেওয়া নিয়মবহির্ভূত বিধায় বিশেষ ক্লাসের জন্য টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করেন তারা। রেজাল্ট ভালো করার স্বার্থেই শিক্ষার্থীদের বিশেষ ক্লাস নেওয়া হয় বলে দুই শিক্ষকের দাবি।

কলেজের অধ্যক্ষ মোন্তাজউদ্দিন মোর্তজা জানান, তিনি বাইরে আছেন। পরে কথা বলবেন বলে ফোনের সংযোগ কেটে দেন। এ দিকে উপজেলার ভবেরচর ওয়াজীর আলী উচ্চ বিদ্যালয়, বাউশিয়া এমএ আজহার বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়, বড় রায়পাড়া মাধ্যমিক স্কুল, গজারিয়া মডেল হাই স্কুল ও বালুয়াকান্দি ডা. আবদুল গফ্‌ফার হাই স্কুলের পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিশেষ ক্লাসের নামে এক থেকে দেড় হাজার টাকা নেওয়া হয়েছে। ভবেরচর বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম ও বাঘাইয়া কান্দি কলিমউল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক হানিফ মিয়া জানান, তাদের বিদ্যালয়ে ফি নির্ধারণ করা হয়নি। শিক্ষার্থীরা কোচিং বা বিশেষ ক্লাসের পর খুশি হয়ে যদি টাকা দেয় নেওয়া হবে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. জাকির হোসেন জানান, বিশেষ ক্লাস বা কোচিংয়ের জন্য বাধ্যতামূলক ফি আদায়ের কথা তার জানা নেই।

মুন্সীগঞ্জ জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. ইউনূস ফারুকী জানান, বিশেষ ক্লাস, কোচিং ফি, এক্সট্রা কেয়ার যে নামেই টাকা আদায় করা হোক তা বিধিবহির্ভূত। কোনো ভুক্তভোগী অভিযোগ করলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সমকাল

Leave a Reply