নিখোঁজের তিন দিন পর বুড়িগঙ্গায় মিলল ব্যবসায়ীর লাশ

নিখোঁজের তিন দিন পর সোয়ারীঘাট এলাকার বুড়িগঙ্গা নদী থেকে ব্যবসায়ীর ভাসমান লাশ উদ্ধার করেছে কেরানীগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ। নিহত ব্যবসায়ীর নাম মো. নুরুল আমিন মন্টু মিয়া (৫০)। সে গত ৯ ফেব্রুয়ারি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বের হয়ে নিজ বাড়ির উদ্দেশে রওনা হয়ে খেয়া নৌকাযোগে বুড়িগঙ্গা নদী পার হওয়ার সময় নিখোঁজ হয়। পুলিশ গতকল বুধবার দুপুরে নিহতের লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে।

নিহতের ছেলে আমির হোসেন জানান, তার বাবার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার কালিগঞ্জ এলাকার জনৈক মজিবর মার্কেটে এমব্রয়ডারি কারখানা রয়েছে। কালিগঞ্জ এলাকায় দীর্ঘদিন যাবৎ এমব্রয়ডারি ব্যবসা করে আসছেন। গত ৯ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যার পর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বের হয়ে নিজ বাড়ি আরসিন গেট এলাকায় আসার উদ্দেশে রওনা হয়ে খেয়া নৌকাযোগে বুড়িগঙ্গা নদী পার হওয়ার সময় নিখোঁজ হয়।

এরপর আমরা বিভিন্ন আত্মীয়-স্বজনসহ সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে ১১ ফেব্রুয়ারি দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় একটি নিখোঁজ জিডি করি। এরপর গতকাল বুধবার থানা পুলিশের ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে আমার বাবার লাশ শনাক্ত করি। আবার বাবা একজন নামাজি ব্যক্তি ছিলেন। আমার জানা মতে তার কোনো শত্রু ছিল না। আমি প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করছি তারা আমার বাবার প্রকৃত খুনিদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে বিচারের ব্যবস্থা করুক।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার এস আই মো. মুনসুর আলী জানান, নিহতের গ্রামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গিবাড়ী থানা এলাকার মৃত মনির হোসেনের ছেলে। সে রাজধানীর শ্যামপুর থানাধীন সি/১০ আরসিন গেট এলাকায় সপরিবারে বসবাস করতেন। নিহত নুরুল আমিন মন্টু কালিগঞ্জ এলাকায় এমব্রয়ডারির ব্যবসা করতেন। আমরা ভিডিও ফুটেজের মাধ্যমে জানতে পেরেছি যে ৯ ফেব্রুয়ারি নুরুল আমিন সন্ধ্যা আনুমানিক ৬.৪০ মিনিটে কালিগঞ্জ তৈলঘাট দিয়ে নৌকাযোগে পার হচ্ছেন। এরপর থেকেই তিনি নিখোঁজ ছিলেন।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার এস আই মো. রফিকুল ইসলাম জানান, বুধবার দুপুরে লোকমুখে সংবাদ পেয়ে বুড়িগঙ্গা নদীর সোয়ারিঘাট এলাকা থেকে ব্যবসায়ীর ভাসমান লাশ উদ্ধার করি। এরপর দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশের কাছ থেকে নিহতের পরিবারের লোকজন সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে লাশ শনাক্ত করে। নিহতের কোমড়ে এবং মাথায় ধারাল অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ শাহজামান জানান, নিহত ব্যবসায়ী তিন দিন আগে নিখোঁজ হয়। বুধবার দুপুরে মডেল থানা পুলিশ লাশটি বুড়িগঙ্গ নদী থেকে উদ্ধার করেন। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে আমির হোসেন বাদী হয়ে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। যেহেতু ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধারের আগে আমার থানায় একটি নিখোঁজ জিডি করা হয়েছিল সে কারণে মামলাটি আমার থানাই হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে এটা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। বিষয়টি তদন্তের মাধ্যমে খুনিদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply