ধুলায় দূষিত বায়ু, ধুঁকছে সিরাজদীখানবাসী: নানা রোগে আক্রান্ত রোগী বাড়ছে হাসপাতালে

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখান উপজেলার বিভিন্ন সড়কে চলাচলরত হাজার হাজার মানুষ বর্তমানে শ্বাসকষ্ট, ফুসফুসের ক্যান্সার, হাঁপানি, যক্ষ্ণাসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন। ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে বাতাসে উড়ে আসা ধুলাবালিতে ঘর থেকে সড়কে নামলেই এর কবলে পড়ছেন মানুষজন। এ থেকে রক্ষা পেতে খুব কমসংখ্যক মানুষই মাস্ক ব্যবহার করেন। বেশিরভাগ মানুষই অসচেতনতার কারণে ধুলাবালির সঙ্গে যুদ্ধ করেই জীবনযাপন করে যাচ্ছেন। ফলে চুলকানি, শ্বাসকষ্ট, হাঁপানি, যক্ষ্ণাসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন তারা। চিকিৎসকদের মতে, শ্বাসনালি দিয়ে এসব ধুলাবালি প্রবেশের কারণে ফুসফুসের ক্যান্সারের মতো জটিল রোগও হতে পারে।

সরেজমিন দেখা গেছে, ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কসহ উপজেলার বালুচর, লতব্দী, বাসাইল কেয়াইন, চিত্রকোট ইউনিয়নে ধুলার অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। এমনকি সড়কে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশও। পাশাপাশি বসতবাড়ি, স্কুল-কলেজ, মাদ্রসা-মসজিদ, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, চায়ের দোকান, মুদি দোকান, খাবার হোটেল, সরকারি-বেসরকারি ক্লিনিক, ব্যাংক-বীমাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ধুলাবালিতে ঢাকা পড়ে যাচ্ছে।

হাসাড়া হাইওয়ে থানার ওসি আ. বাসেত জানান, মহাসড়কের দায়িত্ব পালনকালে আমাদের হাইওয়ে থানা পুলিশও প্রতিনিয়ত ধূলার সঙ্গে যুদ্ধ করে ডিউটি করছেন। হাইওয়ের চার লেনের কাজ চলছে, কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত ধুলার অত্যাচার হতে রেহাই পাব না বলে মনে হয়।

পাথরঘাটা বাজারের ডা. মুরাদ হোসেন বলেন, এ সমস্যা আজকের নয়। অনেক দিন ধরে চলছে। দোকানি ও বাড়ির মানুষের অবস্থা খুবই খারাপ। রাস্তায় গাড়ি এসে থামার সঙ্গে সঙ্গে পেছন দিক থেকে ধুলা এসে ভরে যায়। মিনিটের মধ্যে দোকানসহ আমি সাদা হয়ে যাই। উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের বেশিরভাগ ফসলি জমির মাটি কেটে ও বালু দিয়ে বিভিন্ন ডোবা-নালা ও জমি ভরাটের কাজ করা হচ্ছে। ওই মাটি ও বালু বহনে ব্যবহার করা অবৈধ মাহিন্দ্র ও ড্রাম ট্রাকগুলোর কারণে ধুলাবালি বাতাসে উড়ছে বেশি।

সিরাজদীখান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. বদিউজ্জামান বলেন, ধুলাবালিতে যে শুধু শ্বাসনালি বা ফুসফুস আক্রান্ত হতে পারে, তা নয়। শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গেও তা প্রভাব ফেলতে পারে। বর্তমানে আমাদের হাসপাতালে ধুলাবাহিত বায়ুদূষণের রোগবালাই আক্রান্ত রোগী বৃদ্ধি পাচ্ছে আশঙ্কাজনকভাবে।

সমকাল

Leave a Reply