দুর্গম এলাকা বেছে নেয় মাদক সিন্ডিকেট

কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু: মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলের বাংলাবাজার ইউপির বানিয়াল গ্রামের দুর্গম এলাকায় ১৭৪ শতাংশ জমির প্রতি শতাংশে ৫০০টি করে মোট ৮৭ হাজার নিষিদ্ধ অপিয়ম পপি গাছের চাষ করা হয়। প্রতিটি গাছে তিনটি করে ফল হওয়ায় সেখানে দুই লাখ ৬১ হাজার নিষিদ্ধ অপিয়ম পপি ফল হয়েছিল। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের দেওয়া তথ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে মাদক সিন্ডিকেটের কোটি কোটি টাকা আয়ের স্বপ্ন ভেস্তে যায়। ৮ মার্চ অভিযান চালিয়ে আলামত জব্দ করার ঘটনায় দু’জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় আসামি দিয়ে মামলা করেন সদর থানার এসআই লোকমান।

অন্যদিকে, মামলা হলেও আসামি গ্রেপ্তারে ব্যর্থ হওয়ায় এজাহারভুক্ত দুই আসামি খোরশেদ আলম মাঝি ও নিজাম মিজি বুধবার গোপনে মুন্সীগঞ্জ আদালতে আত্মসমর্পণ করে। এ সময় বিচারক আসামিদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে মুন্সীগঞ্জ জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

জানা গেছে, অভিযান শেষে ৮ মার্চ বিকেলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শেখ মেজবাহ-উল-সাবেরিন নিষিদ্ধ অপিয়ম পপি চাষে স্থানীয় দুই ব্যক্তির সঙ্গে মোল্লাকান্দির ইউপি সদস্য স্ব্বপন দেওয়ানের জড়িত থাকার তথ্য পুলিশ ও গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। অথচ সদর থানায় রুজু করা মামলার এজাহারে স্বপন দেওয়ানের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। এজাহারে দু’জনের নাম থাকলেও অপর আসামিরা অজ্ঞাতপরিচয়।

মামলার বাদী এসআই লোকমান মিয়া জানান, নিষিদ্ধ অপিয়ম পপি চাষের সঙ্গে জড়িত সদরের বাংলাবাজার ইউপির দক্ষিণ ভূ-কৈলাশ গ্রামের মৃত আবদুল লতিফ মিজির ছেলে নিজাম মিজি ওরফে মাইগ্যা নিজাম, বানিয়াল পূর্ব বাগেরচর গ্রামের সাখাওয়াত মাঝির ছেলে খোরশেদ আলম মাঝি ওরফে খুইশ্যাসহ অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করা হয়েছে। তিনি জানান, খবর পেয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শেখ মেজবাহ-উল-সাবেরিনের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে আফিম তৈরির উদ্দেশ্যে পপি চাষের আলামত জব্দ করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সদর থানার ওসি-অপারেশন শেখ আবু হানিফ জানান, ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের খবর পেয়েই আসামিরা আত্মগোপনে চলে যায়। এরই মধ্যে মামলার ১০ দিনের মাথায় গোপনে দুই আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করেছে বলে শুনেছি। তদন্তের স্বার্থে জেলহাজতে থাকা দুই আসামিকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ করতে আদালতে রিমান্ড আবেদন করার প্রক্রিয়া চলছে। তিনি জানান, এজাহারভুক্ত দু’জনের সঙ্গে কে বা কারা জড়িত, তা নিশ্চিত হওয়া যাবে জেলহাজতে থাকা আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ করার পর।

মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলের বাংলাবাজার ইউপির বানিয়াল গ্রামের দুর্গম এলাকায় চাষ করা হয়েছিল পপি গাছ – সমকাল

মুন্সীগঞ্জের বাংলাবাজার ইউপির চরাঞ্চল বানিয়ালে তিন কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে এমন দুর্গম জায়গায় পপিচাষ করা হয়েছে, যা অনেকের চোখেই পড়বে না। আলু আবাদের কথা বলে জমি বর্গা নিলেও পপিচাষ করায় প্রথমে সাধারণ মানুষের কাছে সয়াবিন চাষের কথা প্রচার করা হয়। আলু অধ্যুষিত এ জনপদের মানুষ তাই পপিগাছগুলো বড় হয়ে ফুল ফুটলেও কেউ বুঝতে পারেনি। তবে ব্যতিক্রমী ফুল ও ফল সবার দৃষ্টিগোচর হলেও পপিচাষের রহস্য উদ্‌ঘাটনের সাধ্য ছিল না কারও। এ পপিচাষের সঙ্গে জড়িতরা হচ্ছে- আবদুল লতিফ মিজির ছেলে নিজাম মিজি ও খোরশেদ আলম মাঝি এবং মোল্লাকান্দির ইউপি সদস্য স্বপন দেওয়ান। বাংলাবাজারের বানিয়াল গ্রামবাসীর মতে, এ পপিচাষের নেপথ্যের মূল উদ্যোক্তা হলো স্বপন দেওয়ান।

যেভাবে প্রকাশ হয় পপিচাষের কথা :পদ্মা নদীঘেঁষা চরাঞ্চলের দুর্গম এলাকায় কৃষিজমি হওয়ায় প্রয়োজন ছাড়া কারও চলাচল নেই। ইউপি সদস্য ননী গোপাল বলেন, বাংলাবাজার ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন পীর পদ্মা নদী পাড়ি দিয়ে আসার পথে সাদা রঙের ফুল ও গোটা দেখে আকৃষ্ট হয়ে সেখানে দাঁড়িয়ে ছবি তুলে আমেরিকাপ্রবাসী বন্ধুর কাছে পাঠান এবং ফেসবুকে পোস্ট করেন। পরে আমেরিকাপ্রবাসী তার বন্ধু সাদা ফুলগুলো আফিম তৈরির পপি ফুল জানালে ইউপি চেয়ারম্যান বিস্মিত হন এবং বিষয়টি প্রশাসনকে জানান। অন্যদিকে, ইউপি চেয়ারম্যানের ছবি তোলার খবর পেয়ে ৭ মার্চ রাতে ট্রাক্টর দিয়ে ১৭৪ শতাংশ জমিতে চাষ করা পপিগাছ বিনষ্ট করে ফেলে মাদক সিন্ডিকেট। এতে স্থানীয়দের সন্দেহ ঘনীভূত হয়। তবে ট্রাক্টর দিয়ে পপিগাছ বিনষ্ট করলেও রাতের শিশির পড়ে মাড়ানো গাছ থেকে পপি ফুল ফুটে পুরো এলাকা আবার সাদা রঙে সয়লাব হয়ে যায়।

মাদক কারবারিরা এলাকার ত্রাস :পপিচাষি নিজাম মিজিকে এলাকার মানুষ চিহ্নিত সন্ত্রাসী হিসেবেই চেনে। এলাকার অধিকাংশ মানুষই জানান, নিজাম একজন ভূমিদস্যু ও অত্যাচারী। মানুষের জমি দখল করা এবং নিরীহ মানুষকে জিম্মি করে রাখাই তার কাজ। তার ভয়াল থাবা থেকে ৭০ বছরের ফাতেমা বেগমও রেহাই পাননি।

অন্যদিকে, পপিচাষের সঙ্গে জড়িত মোল্লাকান্দি ইউপির ওয়ার্ড সদস্য স্বপন দেওয়ান মাদক কারবারি ও আতঙ্কের নাম। স্থানীয় আধিপত্যকে কেন্দ্র করে স্বপন দেওয়ানের বিরুদ্ধে মোল্লাকান্দিতে সংঘাত লাগিয়ে রাখার অভিযোগ রয়েছে একাধিক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীর। এলাকায় আধিপত্য, অস্ত্রবাজি ও জনগণকে হয়রানির ব্যাপারে স্বপন দেওয়ানের বিরুদ্ধে রয়েছে অসংখ্য অভিযোগ।

সমকাল

Leave a Reply