মুন্সীগঞ্জে পপি চাষ, দুই আসামির আত্মসমর্পণঃ মূল হোতার নাম নেই এজাহারে

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের বানিয়াল ভুইকৈলাস এলাকায় আফিম তৈরির জন্য পপি চাষের ঘটনার মামলায় এজাহারভুক্ত দুই আসামি খোরশেদ আলম মাঝি ও নিজাম মিজি আদালতে আত্মসমর্পণ করেছেন। গত বুধবার সদর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক এমদাদুল হকের আদালতে তারা আত্মসমর্পণ করে জামিনের প্রার্থনা করেন। এতে আদালতের বিচারক এজাহারভুক্ত আসামিদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

অন্যদিকে এজাহারে থাকা অজ্ঞাতপরিচয় আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশের তৎপরতা নিয়ে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মাঝে নানা কৌতূহলের সৃষ্টি হয়েছে।

গত ৮ মার্চ খবর পেয়ে সদর উপজেলা কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মেজবাহ-উল-সাবেরিনের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের একটি টিম চরাঞ্চলে পদ্মা নদী ঘেঁষা বাংলাবাজার ইউনিয়নের চর বানিয়াল গ্রামে অভিযান চালায়। এ ঘটনায় ওই দিন রাতেই সদর থানায় মামলা রুজু করা হয়। কিন্তু মামলার এজাহারে ঘটনার মূল হোতা মোল্লাকান্দির ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য স্বপন দেওয়ান জড়িত রয়েছে এমন তথ্য ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শেখ মেজবাহ উল সাবেরিন জানালেও রহস্যজনক কারণে এজাহারে ওই

ইউপি সদস্যের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। এমনকি এজাহারভুক্ত দুই আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযানও প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। আর এ সুযোগেই ১০ দিনের মাথায় এজাহারভুক্ত দুই আসামি গত বুধবার মুন্সীগঞ্জ আদালতে আত্মসমর্পণ করার সুযোগ পায় বলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ গ্রামবাসী অভিযোগ করেন।

তবে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সদর থানার ওসি (অপারেশন) আবু হানিফ জানান, আসামিদের গ্রেপ্তারে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালানো হলেও তারা পলাতক থাকায় গ্রেপ্তার করা যায়নি। ইউপি সদস্য স্বপন দেওয়ানের নাম এজাহারে নেই কেন- এমন প্রশ্ন করা হলে তদন্ত কর্মকর্তা তা কৌশলে এড়িয়ে যান।

এদিকে বুধবার বিকেলে আদালত প্রাঙ্গণে কথা হয় এজাহারভুক্ত দুই আসামির স্ত্রীদের সঙ্গে। তারা বলেন, দীর্ঘ ১০ বছর ধরে মোল্লাকান্দির ইউপি সদস্য স্বপন দেওয়ান এই জমিতে চাষাবাদ করছেন। তার নামে মামলা হলো না, আসামি করা হলো আমাদের স্বামীদের।

সমকাল

Leave a Reply