শ্রীনগরে করোনা আতঙ্কে বেকার দিনমজুররা এনজিও’র ঋণের চাপে দিশেহারা

আরিফ হোসেনঃ শ্রীনগরে করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে ও সংক্রমণ প্রতিরোধে প্রশাসনের নির্দেশনার কারণে অনেক খেটে খাওয়া মানুষ বেকার হয়ে পড়েছে। গত কয়েক দিনে শ্রীনগরের রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়ে যাওয়ায় ব্যাটারী চালিত অটো ও রিক্সা সহ ক্ষুদ্র যানবাহন চালকরা রাস্তায় নামলেও তেমন যাত্রী পাচ্ছেন না। এছাড়াও বিভিন্ন পেশার দিনমজুরের আয় কমে গেছে অনেক। করোনা আতঙ্কের জন্য আয় কমে গেলেও ছাড় দিচ্ছেনা এনজিও গুলো। এনজিও গুলোর কর্মীরা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঋণগ্রহীতার বাড়িতে বসে থেকে চাপ প্রয়োগ করছে। উপায় না দেখে দিনমজুররা বাড়িতেও থাকতে পারছেনা। পরিবার পরিজন ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে।

উপজেলার বাঘরা ইউনিয়নের কাঠালবাড়ী গ্রামের হেনা বেগম জানায়, তার স্বামী মুকবুল হোসেন কিডনি রোগে আক্রান্ত। স্থানীয় এক এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে বিভিন্ন স্কুলের সামনে ঝাল মুড়ি বিক্রি করে ঋণের কিস্তি ও সংসার চালিয়ে আসছিল। করোনার জন্য এখন স্কুল বন্ধ। তাই কোন আয় নেই। খেয়ে না খেয়ে দিন পার করতে হচ্ছে। টাকার অভাবে চিকিৎসা বন্ধ। কিন্তু ঋনের কিস্তির চাপ রয়েছে অনেক। সারা দিনে এনজিওর লোকজন কয়েকবার বাড়িতে আসে। কিস্তি না পেয়ে বকাঝকা করে।

বীরতারার অটোরিক্সা চালক আয়নাল মিয়া বলেন, ৬০ হাজার টাকা কিস্তি নিয়ে অটোরিক্সা কিনেছি। প্রতিদিন ৬শ থেকে ৭শ টাকা আয় হতো। সাপ্তাহিক কিস্তি পরিশোধ করে স্ত্রী ২ সন্তান ও বৃদ্ধ মাকে নিয়ে সংসার চলে যেত। এখন সারা দিনে আয় হয় ১ থেকে দেড়শ টাকা। কিস্তি দিব, সংসার চালাবো নাকি বৃদ্ধা মায়ের ঔষধ কিনব? পেটে পাথর বেধে থাকলেও কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে হবে।

হেনা বেগম ও আয়নাল শেখের মতো এই রকম চিত্র উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়নের প্রতিটি গ্রামে।

করোনা ভাইরাস যাতে ছড়াতে না পারে এজন্য লোক সমাগমে সরকারী নিষেধাজ্ঞা থাকলেও এনজিও মাঠ কর্মীরা গ্রামে কিস্তি আদায় করতে গিয়ে অবাধে লোক সমাগম করছে। এক একটি গ্রামে ৩০ থেকে ৫০ জন নারী কিস্তির টাকা পরিশোধের জন্য একত্রিত হচ্ছে।

শ্রীনগর উপজেলার আনাচে কানাচে ঋণ বিতরণ করে প্রতিনিয়ত কিস্তি আদায় করছে ব্র্যাক,প্রশিকা,রুর‌্যাল,ব্যুরো বাংলাদেশ,আশা, রিক,এসএসএস, পিদিম ফাউন্ডেশন ও সাজেদা ফাউন্ডেশনসহ অন্তত ৩০ টি এনজিও।

শ্রীনগর উপজেলার সিনিয়র সাংবাদিক উজ্জ্বল দত্ত বলেন, সরকারের সতর্কতা জারির কারণে ও করোনা অতঙ্কে সাধারণ মানুষের আয় কমে যাওয়ায় তারা বিপাকে পরেছে। তার উপরে এনজিওদের ঋণের চাপ মরার উপর খারার ঘা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিস্তির টাকা আদায় বন্ধে সরকারের এখনই সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিৎ।

Leave a Reply