মুন্সীগঞ্জে ১০টি বাড়ি, একটি মসজিদ ও একটি দোকান লক ডাউন (ভিডিও)

জসীম উদ্দীন দেওয়ান: মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার দুইটি গ্রামের ১০টি বাড়ি, একটি মসজিদ ও একটি দোকান লক ডাউন করা হয়েছে ।

লৌহজং উপজেলা কর্মকর্তা কাবিরুল ইসলাম খাঁন জানান, নাগের হাট গ্রামের হারুন বেপারী করোনায় আক্রান্ত হয়ে শুক্রবার ঢাকায় মারা যাওয়ার পর নমুনা সংগ্রহ করা হয় ঢাকা থেকে। স্বজনরা হারুন বেপারীকে তড়িগড়ি করে নিজ গ্রাম নাগের হাটে এনে সাতঘড়িয়া কবর স্থানে দাফন করেন। তার আগে তাকে নাগের হাটে জানাজা দেয়া হয়। নমুনা সংগ্রহে করোনা ধরা পড়ায়, নাগের হাটের তিনটি বাড়ি, হারুন বেপারীকে গোসল করানো আব্দুল রবের দোকান যেহেতু সে দোকানেই বসবাস করে এবং সাত ঘড়িয়া জামে মসজিদ, যেহেতু সে সেখানে নামজ পড়ছে, সে কারণে মসজিদটিকে লক ডাউন করা হয়েছে ।

একই উপজেলার নিজ গ্রাম কনকসারে শরীরে করোনা ভাইরাস বহন করে শুক্রবার দরিদ্র ন্বজনদের মাঝে ত্রাণ দিতে আসার পর, সোমবার ঢাকায় মারা যায় ওহাব দেওয়ান। শুক্রবার রাতে ওহাব দেওয়ান কনকসারে অবস্থানও করেন। যেহেতু বিভিন্ন লোকের সাথে তাঁর উঠা বসা হয়েছে, সে কারণে কনকসারে ওয়াবের আত্মীয়ের সাতটি বাড়ি লক ডাউন করা হয় বলে জানান তিনি। ইউএনও আরো জানান, ঐ ১০ টি বাড়ির লোক এবং দোকানী ওহাব ১৪ দিন পর্যন্ত ঘর থেকে বের হতে পারবেনা এবং তাদের সাথে কোন আত্মীয় স্বজন বা কেহ দেখা করতে পারবেনা। প্রসাসন তাদের খাবারের ব্যবস্থা করবে বলে জানান তিনি।

কাবিরুল ইসলাম বলেন, আগামী কাল এসব পরিবারের বেশ কিছু জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকা পাঠানো হবে। পর্যায়ক্রমে বাকিদের নমুনা পাঠানো হবে। জেলা সিভিল সার্জন ডা: আবুল কালাম আজাদ বলেন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোন এলাকায় রোগী মারা গেলে, সে এলাকা ডক ডাউন করে দেওয়ার নির্দেশনা রয়েছে। তবে লৌহজং পুরো উপজেলা বা কোন ইউনিয়ন লকডাউন করা হয়নি। শুধু ১০টি ঘর, একটি মসজিদ ও একটি দোকান লক ডাউন করা হয়েছে।

Leave a Reply