শ্রীনগর উপজেলা প্রশাসন আমাদের ভাতের ব্যবস্থা করে দিয়েছে

আরিফ হোসেনঃ শ্রীনগর উপজেলা পরিষদের সামনে শহীদ মিনার সংলগ্ন ও দেউলভোগ এলাকায় ছোট ছোট ঘর ভাড়া নিয়ে বাস করেন প্রায় অর্ধ শতাধিক রিক্সা ও অটো চালক। পরিবার পরিজন ছেড়ে তাদের জন্য খাবার জোগার করতে তারা প্রতিবছর ছুটে আসেন এখানে। মেসে রান্না করে দুই বেলা খাবার খান। প্রতিবছরের ন্যায় তারা এবারও এসেছেন। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারনে তারা প্রায় ১৫ দিন ধরে পুরোপুরি বেকার।

একারণে পরিবার পরিজনের জন্য টাকা পাঠানো দুরের কথা নিজেদের খাবারই জোগার করতে পারছিলেন না। বেশ কয়েকদিন একে অপরের কাছ থেকে ধার করে ও আশ পাশের দু একজনের সহায়তায় খেয়ে না খেয়ে কোন রকমে চলেছেন। কয়েকদিন আগে যখন আর ক্ষুধার জ্¦ালা সহ্য করতে পারছিলেন না তখন দ্বারস্থ হন শ্রীনগর উপজেলা নির্বহী অফিসার মোসাম্মৎ রহিমা আক্তারের কাছে। তিনি সব কথা শুনে তাদের তালিকা প্রস্তুত করার নির্দেশ দেন। দু এক দিনে তালিকা তৈরি হয়ে যাওয়ার পর রবিবার তাদের হাতে তুলে দেন ৫শ কেজি চাল, ২০কেজি আলু ও ১০কেজি ডাল।উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাদের কষ্ট দুর করার জন্য আড়িয়ল বিলে ধান কাটার শ্রমিক হিসেবে কাজ করার পরামর্শ দেন।খাদ্য সামগ্রী হাতে পেয়ে অনাহারে অর্ধাহারে দিন পার করা মানুষগুলোর মুখে হাসি ফুটে উঠে। এসময় রিকসা চালক শাহিন বলেন, উপজেরা প্রশাসন আমাদের ভাতের ব্যবস্থা করে দিয়েছে। আর যাই হোক আমাদের ভাতের কষ্ট করতে হবে না।

অপরদিকে দিনমজুর হিসেবে শ্রম বিক্রি করতে এসে যারা আটকা পরেছেন তাদের মুখে একবেলা খাবার তুলে দেওয়ার দায়িত্ব পালন করছিল হরপড়া তরুণ সংঘ নামের একটি সংগঠন। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের খাবারের জন্য ৫শ কেজি চাল,২০ কেজি আলু ও ১০ কেজি ডাল হাস্তান্তর করা হয়।

Leave a Reply