ত্রাণ বিতরণের নামে লুটের মনেবৃত্তি নিয়ে সরকার তাদের লোকদেরকে অন্তর্ভূক্ত করেছে

সিরাজদিখানে রুহুল কবীর রিজভী
নাছির উদ্দিন: আমরা দেখেছি ত্রাণ বিতরণের নামে নিজেদের লোকজনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তাদের ইউপি চেয়ারম্যান মেম্বাররা যুক্ত ছিলেন, পরে কি হলো তাদের বাড়ি থেকে তেল পাওয়া গেছে, চাউল পাওয়া গেছে, ডাল পাওয়া গেছে। একটা লুটের মনেবৃত্তি নিয়ে সরকার নিজেদের লোকদেরকে এর মধ্যে অন্তর্ভূক্ত করেছে। মুন্সীগঞ্জে ত্রাণ বিতরণ কালে বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ন মহাসচিব এ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি আরো বলেন, মানুষকে বাঁচাতে হবে, তাদেরকে সতর্ক করতে হবে, এই দায়িত্ব তাদের নেই। তারা উন্নয়নে ভাসিয়ে দিয়েছেন! আজকে হাসপতাল নাই কেন? করোনা রোগীর জন্য দরকার ভেনটিলেটার, অক্সিজেন। ৯০ শতাংশ জেলা পর্যায়ের হাসপাতালে এটির ব্যাবস্থা নেই। মানুষ মরবে না বাঁচবে? আপনিতো মানুষ বাঁচানোর কাজ করেন নাই। আপনি কাজ করেছেন আপনার নেতা কর্মীদের উন্নয়নের নামে যেন পকেট ভারী হয়। আজকে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি আপনারা তৈরী করে এখন মানুষ মরুক-বাঁচুক এটা সরকারের কোন দায়িত্ব নেই।

শুক্রবার সকাল ৯ টার দিকে জেলার সিরাজদিখান উপজেলার নিমতলা ও সকাল ১০ টার দিকে শ্রীনগর উপজেলার সাতগাঁও বাজার এলাকায় ত্রাণ বিতরণ করা হয়। বিএনপি’র সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার নির্দেশে বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপুর উদ্যেগে, সিরাজদিখানে ৩০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। প্রধান অতিথি হিসেবে রুহুল কবীর রিজভী অসহায় কর্মহীনদের হাতে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেন। প্রতিটি পরিবারকে সেমাই, চিনি, প্যাকেট দুধ, পোলাউর চাউল, ডাল, পিয়াজ ও সাবান দেওয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুছ ধীরণ, কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল আহমেদ, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলেরে সাবেক সহ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জল, সিরাজদিখান উপজেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক আওলাদ মোল্লা, বিএনপি নেতা কাজী কামরুজ্জান লিপু, আবু তাহের ,যুবদল নেতা ইয়াসিন সুমন, এ আর মানিক ,প্রিন্স নাদিম,ছাএ দল নেতা হিমেল আহম্মেদ ,মাহামুদুর হাসান ফাহাদ,শ্রমিক দল নেতা বাদশা মিয়া সহ জেলা উপজেলার বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply